• ঢাকা
  • রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০
প্রকাশিত: জুন ২, ২০২১, ০২:০৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ২, ২০২১, ০২:০৮ পিএম

পোড়া স্থানে ফোসকা পড়া যেভাবে এড়াবেন

পোড়া স্থানে ফোসকা পড়া যেভাবে এড়াবেন

প্রতিদিন রান্না করছেন। হাত তো পুড়বেই। তেল ছিটে ফোসকাও পড়তে পারে। গরম কিছুর ছেঁকাও লাগতে পারে। হঠাৎ ঘটে যেতে পারে এমন দুর্ঘটনা। তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা না নিলে দগ্ধ জায়গায় আরও সমস্যা হয়। তাই ওই মুহূর্তে কী যত্ন নেওয়া যেতে পারে তা জানা জরুরি। পুড়ে যাওয়া স্থানে তাৎক্ষণিক জ্বালাভাব কমাতে ঘরোয়া কিছু টিপস জেনে রাখুন। যা তাৎক্ষণিক জ্বালা-পোড়ার যন্ত্রণা কমাবে।

ঠান্ডা পানি ঢালুন

পুড়ে যাওয়া স্থানে প্রথমেই ঠাণ্ডা পানি ঢালুন। কোনও পাত্রে ঠাণ্ডা পানি নিয়েও পোড়া স্থান ডুবিয়ে রাখতে পারেন। এতে জ্বালাভাব কমবে।  কাজটি সঙ্গে সঙ্গেই করতে হবে। তবে পোড়া স্থানে ভুলেও বরফ ঘষা যাবে না। এতে ক্ষত বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

টুথপেস্ট লাগাবেন

টুথপেস্ট পোড়া স্থানে লাগিয়ে নিলে বেশ উপকার পাবেন। তেল ছিটে ফোসকা বা পুড়ে যাওয়া যেকোনও স্থানে টুথপেস্ট লাগিয়ে রাখুন। বেশকিছুক্ষণ লাগিয়ে রাখুন। বেশ উপকার পাবেন। এতে থাকা মিন্ট পোড়া স্থানকে ঠাণ্ডা রাখে। ফোসকা পড়তে দেয় না।

কলার খোসা চেপে ধরুন

কলার খোসা পোড়া স্থানে চেপে ধরুন। এটি জ্বালা-পোড়ার যন্ত্রণা কমাতে বেশ কার্যকরী। কলার খোসা এন্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করে। এতে ক্ষতস্থানে ইনফেকশন হয় না। 

মধু লাগিয়ে নিন

পোড়া স্থানে মধু লাগিয়ে নিতে পারেন। মধু খুব ভালো অ্যান্টিসেপটিক। এটি লাগিয়ে রাখলে জ্বালা-পোড়া অনেকটা কমে যায়। সেই সঙ্গে পোড়া স্থান শুকিয়ে দাগও দূর করতে মধু কাজ করে।

দই মাখিয়ে রাখুন

দই বা কাঁচা দুধ পোড়া স্থানের ক্ষত দ্রুত সারিয়ে তুলে। প্রায় ঘণ্টাখানেক পোড়া স্থানে দই মাখিয়ে রাখুন। এতে জ্বালাভাব কমবে, ফোসকা পড়বে না।

টি-ব্যাগ শীতল করবে

চা পানের পর টি-ব্যাগটি ফেলে দিবেন না। এটি আপনার পোড়া স্থানে লাগিয়ে নিতে পারেন। চা পাতায় ট্যানিক এসিড থাকে। যা ত্বককে শীতল করে। এতে জ্বালাভাব কমে যাবে।

অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করুন

অ্যালোভেরার জেলের নানা গুণের মধ্যে এটিও একটি। এই জেল পোড়া স্থানে লাগিয়ে নিলে তা দ্রুত সারিয়ে তুলে। দাগও দূর হয়। জ্বালা-পোড়া কমে, ঠাণ্ডা অনুভব হয়। এই জেল নিয়মিত পোড়া স্থানে লাগাতে পারেন। ধীরে ধীরে পোড়া দাগ মুছে যাবে।