• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১২ এপ্রিল, ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০
প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪, ০৯:২১ এএম
সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪, ০৯:২১ এএম

মনের কথা বলে দেবে জাকারবার্গের যন্ত্র!

মনের কথা বলে দেবে জাকারবার্গের যন্ত্র!
মার্ক জাকারবার্গ ● ফেসবুক

আমেরিকার খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের (এফডিএ) অনুমোদন আগেই পেয়েছিল ধনকুবের ইলন মাস্কের প্রতিষ্ঠান নিউরালিঙ্ক।

সম্প্রতি পরীক্ষামূলকভাবে মানুষের ব্রেইনে (মস্তিষ্ক) চিপ বসিয়েছে তারা। এবার সে পথে হাঁটছেন মেটার প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ।

এমন একটি ডিভাইস বানাবেন তিনি, যা দিয়ে মনের কথা জানা যাবে। 

প্রথমবার মানুষের মাথায় চিপ বসায় টেসলা। এর আগে শূকর ও বানরের মস্তিষ্কে নিউরালিংকের ডিভাইস সফলতার সঙ্গে স্থাপন করা হয়। মাস্কের প্রতিষ্ঠানটি দাবি করছে, ডিভাইসটি স্থাপন ও অপসারণ একেবারেই নিরাপদ। এতে কোনো তার নেই।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মাস্কের নিউরালিঙ্কের চিপের সাহায্যে অনেকটাই স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবেন শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধীরা।

চলাফেরা কিংবা যোগাযোগে অক্ষম বা দুর্বল ব্যক্তিদের জন্য কিছু করার চেষ্টা অনেক আগে থেকেই চালিয়ে যাচ্ছিলেন ইলন মাস্ক। 

এরই মধ্যে কিছু সফলতা আসতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছে নিউরালিংক। যার দেহে এই চিপ বসানো হয়েছে, তাঁর স্নায়ু কিছুটা কাজ করতে শুরু করেছে। তিনি সুস্থতার দিকে যাচ্ছেন।

টেসলার পর এবার মেটাও সেই পথে হাঁটছে। গত সপ্তাহে মর্নিং ব্রুর ডেইলি পডকাস্টে মেটার প্রধান নির্বাহী জাকারবার্গ বলেন, নতুন নিউরাল ইন্টারফেস ব্যান্ড আনছে তারা।

এই ডিভাইস মস্তিষ্কের বিভিন্ন সিগন্যাল বুঝতে পারবে এবং হাতের মুভমেন্টও ধরতে পারবে। এরপর এসব সিগন্যাল প্রকাশও করতে পারবে। 

আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই এই ডিভাইস আসছে বলে জানান জাকারবার্গ। এতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) যুক্ত থাকবে বলেও জানান তিনি। 

আমেরিকার খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের (এফডিএ) অনুমোদন আগেই পেয়েছিল ধনকুবের ইলন মাস্কের প্রতিষ্ঠান নিউরালিঙ্ক।

সম্প্রতি পরীক্ষামূলকভাবে মানুষের ব্রেইনে (মস্তিষ্ক) চিপ বসিয়েছে তারা। এবার সে পথে হাঁটছেন মেটার প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ। এমন একটি ডিভাইস বানাবেন তিনি, যা দিয়ে মনের কথা জানা যাবে। 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, প্রথমবার মানুষের মাথায় চিপ বসায় টেসলা। এর আগে শূকর ও বানরের মস্তিষ্কে নিউরালিংকের ডিভাইস সফলতার সঙ্গে স্থাপন করা হয়।

মাস্কের প্রতিষ্ঠানটি দাবি করছে, ডিভাইসটি স্থাপন ও অপসারণ একেবারেই নিরাপদ। এতে কোনো তার নেই।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মাস্কের নিউরালিঙ্কের চিপের সাহায্যে অনেকটাই স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবেন শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধীরা। চলাফেরা কিংবা যোগাযোগে অক্ষম বা দুর্বল ব্যক্তিদের জন্য কিছু করার চেষ্টা অনেক আগে থেকেই চালিয়ে যাচ্ছিলেন ইলন মাস্ক। 

এরই মধ্যে কিছু সফলতা আসতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছে নিউরালিংক। যার দেহে এই চিপ বসানো হয়েছে, তার স্নায়ু কিছুটা কাজ করতে শুরু করেছে। তিনি সুস্থতার দিকে যাচ্ছেন।
   
টেসলার পর এবার মেটাও সেই পথে হাঁটছে। গত সপ্তাহে মর্নিং ব্রুর ডেইলি পডকাস্টে মেটার প্রধান নির্বাহী জাকারবার্গ বলেন, নতুন নিউরাল ইন্টারফেস ব্যান্ড আনছে তারা।

এই ডিভাইস মস্তিষ্কের বিভিন্ন সিগন্যাল বুঝতে পারবে এবং হাতের মুভমেন্টও ধরতে পারবে। এরপর এসব সিগন্যাল প্রকাশও করতে পারবে। 

আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই এই ডিভাইস আসছে বলে জানান জাকারবার্গ। এতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) যুক্ত থাকবে বলেও জানান তিনি। 

জাগরণ/প্রযুক্তি/এসএসকে