• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২১, ৩ বৈশাখ ১৪২৮
প্রকাশিত: এপ্রিল ৭, ২০২১, ০২:৩৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ৭, ২০২১, ০৪:২৩ পিএম

ভালো নেই দেশসেরা ভারোত্তোলক রতন কুমার

ভালো নেই দেশসেরা ভারোত্তোলক রতন কুমার

ভারোত্তোলনে জাতীয় পর্যায়ে ১৬টি সোনা, ৩১টি রূপা আর ১২টি ব্রোঞ্জ। কেবল তাই নয়, তার ঝুলিতে আরো রয়েছে দুটি আন্তর্জাতিক পদক আর ৮টি জাতীয় রেকর্ড। ১৯৮১ সালে তিনি মিস্টার বাংলাদেশ খেতাব পান। দেশের ক্রীড়াক্ষেত্রে যার এত অবদান সেই রতন কুমার পাল আজ জীবনের সঙ্গে ধুঁকছেন। কেউ তার খোঁজ রাখে না।

কুষ্টিয়া শহরের রাজারহাট এলাকার দুই কক্ষবিশিষ্ট ছোট একটি বাড়িতে এক ছেলে আর স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস ১৯৮১ সালের মিস্টার বাংলাদেশ খ্যাত রতন কুমার পালের। ১৯৮১ থেকে ২০০০ সাল—টানা ২০ বছর তিনি শাসন করেছেন ভারোত্তোলনের কোর্ট। এই সময়ে জাতীয় পর্যায়ের ভারোত্তোলন প্রতিযোগিতায় তিনি জিতেছেন ১৬টি সোনা, ৩১টি রুপা ও ১২টি ব্রোঞ্জ। এর মধ্যে ৮টি জাতীয় রেকর্ডও রয়েছে রতন কুমার পালের ঝুলিতে। এছাড়া আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তিনি পেয়েছেন দুটি পদক।

ভারত্তোলক রতন কুমার পাল জানান, অতিরিক্ত ভারোত্তোলনের কারণে তার হাঁটুর হাড় ক্ষয়ে যাওয়ার প্রায় বিপুল অর্থ ব্যয়ে কৃত্রিম হাঁটু সংযোজন করতে হয়েছে। বর্তমানে নানা রোগ বাসা বেঁধেছে শরীরে। সংসার চলে টেনে টুনে।

রতন পালের স্ত্রী যূথিকা রানী পাল জানান, নিজে লাঠির সাহায্যে চলতে পারলেও থেমে গেছে পরিবারের রোজগার। তাই সরকারিভাবে রতন পালকে পৃষ্ঠপোষকতা করার আহ্বান জানান তিনি।

জিমন্যাস্টিক খেলোয়াড় দেবাশীষ পাল বলেন, “রতন কুমার পালকে কুষ্টিয়া জিমনাস্টিক ক্লাব থেকে আর্থিক প্রণোদনা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন ক্লাবটির সভাপতি।”