• ঢাকা
  • সোমবার, ২০ মে, ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
প্রকাশিত: এপ্রিল ৬, ২০২৩, ১২:৩২ এএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ৬, ২০২৩, ১২:৩২ এএম

জয়ের সুবাস বাতাসে

জয়ের সুবাস বাতাসে
ছবি ● সংগৃহীত

মিরপুর টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ১৫৫ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শেষ বিকেলে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছে আয়ারল্যান্ড। স্কোরবোর্ডে ২৭ রান যোগ করতেই ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলেছে সফরকারীরা। তৃতীয় দিনে বৃহস্পতিবার ১২৮ রানে পিছিয়ে থেকে ব্যাট করতে নামবে আইরিশরা।

৩৪/২ নিয়ে দিন শুরু করা বাংলাদেশ এইদিন আর ৬ রান যোগ করতেই হারায় আরও এক উইকেট। ফলে ৪০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে যায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে দলের হাল ধরেন মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসান। দু‘জনে মিলে খেলার নিয়ন্ত্রণ ফিরিয়ে আনেন। গড়ে তোলেন দেড় শতাধিক রানের জুটি। 

বিশেষ করে ব্যাট হাতে পাল্টা আক্রমণ চালান অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। সম্মুখ থেকে নেতৃত্ব দেন তিনি, প্রথম বল থেকেই দেখা দেন আক্রমণাত্মক মেজাজে। সুবাদে মাত্র ১৮৮ বলে যোগ করেন ১৫৯ রান। তবে আরও একবার সমর্থকদের হতাশ করেন সাকিব, শতক ছোঁয়ার সুযোগ আর সম্ভাবনা হাতছাড়া করেন তিনি৷ ফেরেন ৯৪ বলে ৮৭ রান করে।

সাকিব হতাশ করলেও হতাশ করেননি মুশফিক। নিজের মতো করে খেলতে থাকেন এক প্রান্ত আগলে রেখে। সময়ের সাথে সাথে তারও ব্যাট হয়ে ওঠে আগ্রাসী, রান বাড়াতে থাকেন দলেরও। একপর্যায়ে গিয়ে তুকে নেন শতকও।

মুশফিককে যোগ্য সঙ্গ দিচ্ছিলেন লিটন দাস। ব্যাট হাতে আজো ছড়াচ্ছেন সুবাস। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি, ৪১ বলে ৪৩ রানে থামেন লিটন। ভেঙেছে মুশফিকের সাথে তার ৮৪ বলে ৮৭ রানের জুটি। এরপর মেহেদী মিরাজের সাথে ৫৭ বলে ৪৫ রানের জুটি গড়েন মুশফিক, যেখানে অবশ্য ৩১ রানই মিরাজের।

এইদিন দ্রুত গতিতে ক্যারিয়ারের চতুর্থ অর্ধশতক তুলে নেন মিরাজ। এরই মাঝে ফেরে ফেরেন মুশফিকুর রহিম। আউট হবার আগে খেলেন ১৬৭ বলে ১২৬ রানের ইনিংস। এরপর ম্যাকবির্নির শিকার হয়ে দ্রুত ৪ উইকেট হারালে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে দ্র‍ুত রান তুলতে গিয়ে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ৫৫ রান করে আউট হন মিরাজ৷

আয়ারল্যান্ডের পক্ষে ম্যাকব্রাইন ২৮ ওভার বল করে ২ মেডেনসহ ৬ উইকেট পান ১১৮ রানের বিনিময়ে। বাকি চারটি উইকেট সমানভাবে ভাগ করে নিয়েছেন আডায়ার ও হোয়াইট।

১৫৫ রান পেছনে থেকে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই সাকিব-তাইজুলের স্পিন তোপে পড়ে আয়ারল্যান্ড। প্রথম ইনিংসে মাত্র ৩ ওভার বল করা সাকিব দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করেন নিজেই বল হাতে। উইকেটের দেখাও পেয়ে যান একই ওভারে। ফেরান জেমস ম্যাককালামকে।

এরপর জোড়া আঘাত হানেন তাইজুল ইসলাম, ম্যারি কামিন্সকে (১) এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলার পর স্ট্যাম্প ভেঙেছেন আইরিশ অধিনায়ক এন্ডি বালবির্নির; ৩ রান করেন তিনি।

এরপর অবশ্য একটা প্রতিরোধ এসেছে তাদের কাছ থেকে। প্রথম ইনিংসে ফিফটি করা হ্যারি টেক্টর আর পিটার মুর উইকেট পতনের স্রোত আটকান। ৬৩ বল টিকে থেকে ১৪ রান যোগ করেন দুজন।

জাগরণ/খেলা/ক্রিকেট/এসএসকে