• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৯, ৮ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: জুলাই ২৬, ২০১৯, ০৯:০১ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুলাই ২৬, ২০১৯, ০৯:০১ পিএম

মহাপরিকল্পনা কি নদী দখলদারদের স্বার্থে হচ্ছে : বাপা

জাগরণ প্রতিবেদক
মহাপরিকল্পনা কি নদী দখলদারদের স্বার্থে হচ্ছে : বাপা
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন পরিবেশবাদীবৃন্দ-ছবি : জাগরণ

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও বুড়িগঙ্গা রিভারকিপারের উদ্যোগে সংবাদ সম্মেলনে পরিবেশবাদিরা প্রশ্ন উত্থানপন করে বলেছেন মহাপরিকল্পনা কি দেশের বৃহৎ স্বার্থে হচ্ছে, না- কি নদী দখলদারদের স্বার্থে হচ্ছে।

শুক্রবার (২৬ জুলাই) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে ‘সাম্প্রতিক নদী-উদ্ধার তৎপরতা, মহাপরিকল্পনা ও নদীর ভবিষ্যৎ’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে এ প্রশ্ন রাখা হয়।

বাপার সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. আবদুল মতিনের সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে মূল বক্তব্য রাখেন বাপার যুগ্ম সম্পাদক শরীফ জামিল। বক্তব্য রাখেন বাপার নির্বাহী সদস্য শারমীন মুরশিদ, বুড়িগঙ্গা বাঁচাও আন্দোলন সমন্বয়কারী মিহির বিশ্বাস, ব্রহ্মপুত্র রিভার কিপার ইবনুল সাঈদ রানা প্রমূখ।

পরিবেশবাদী অন্যান্য সংগঠনের প্রতিনিধিগন, সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিশেষজ্ঞ, গবেষক ও পরিবেশবিদগণ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

আবদুল মতিন বলেন, হাইকোর্টের বেঁধে দেয়া নদীর তিনটি অংশ-তলা, তট ও পাড় (১০ থেকে ৫০ মিটার প্রস্থ) এই তিনটি অংশের ভেতরের সকল স্থাপনা নির্মোহভাবে উচ্ছেদ না করলে এই অভিযান সঠিক ও গ্রহণযোগ্য নয়। তিনি হাইকোর্টের নির্দেশনার পূর্ণ বাস্তবায়ন দাবি করেন।

লিখিত বক্তব্যে শরীফ জামিল বলেন, আদালতের রায় সমূহের আলোকে, যথাযথ ভাবে নদীর সীমানা চিহ্নিত করে, দখলকৃত জায়গার স্থাপনা সমূহের তালিকা প্রস্তুত করে, ক্ষেত্রভেদে স্থানান্তর, পুনর্বাসন ও শাস্তি প্রদানের মাধ্যমে নদীর জায়গা নদীকে ফিরিয়ে দিতে হবে।

শারমীন মুরশিদ বলেন, নদী রক্ষা কমিশনের ক্ষমতা বৃদ্ধিসহ দক্ষ জনবলের প্রয়োজন। নদী রক্ষা কমিশনকে রিভিউ করা হচ্ছে। এটা বাস্তবায়িত হলে নদী কমিশন হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করতে পারবে।

টিএস/এসএমএম

আরও পড়ুন