• ঢাকা
  • বুধবার, ২১ অক্টোবর, ২০২০, ৬ কার্তিক ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২১, ২০২০, ১২:১০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২১, ২০২০, ১২:১০ পিএম

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের উপস্থাপক কারিশমা

ক্রীড়া ডেস্ক
বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের উপস্থাপক কারিশমা
কারিশমা কোটাক। ফটো : সংগৃহীত

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ফুটবলের টিভি উপস্থাপিকা হিসেবে কাজ করছেন কারিশমা কোটাক। তিনি একাধারে টিভি উপস্থাপিকা, ক্রীড়াভাষ্যকার, মডেল ও অভিনেত্রী।

২০১৩ সালে ইন্ডিয়ার প্রিমিয়ার লীগ (আইপিএল) দিয়ে ক্রিকেটের উপস্থাপনা শুরু। এরপর কর্ণাটক প্রিমিয়ার লিগ (কেপিএল), এশিয়ান প্রিমিয়ার লীগে মাইক হাতে দেখা গেছে। গেল বছর ক্রিকেট বিশ্বকাপ মাতিয়ে সবশেষ আবুধাবি টি-টেন লীগেও ছিলেন কারিশমা কোটাক। প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে এসেছেন ইংল্যান্ডে জন্ম নেয়া ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই মডেল।

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবলের উদ্বোধনী দিন থেকে টিভি দর্শকদের নজর কেড়েছেন বৃটিশ তরুণী কারিশমা কোটাক। ইংল্যান্ডের বেশ কয়েকটি ম্যাগাজিন ও জনপ্রিয় ব্র্যান্ডের ক্যাটালগের কাজ দিয়ে মডেলিংয়ের যাত্রা শুরু। লন্ডন ফ্যাশনউইকের র‌্যাম্পেও হেঁটেছেন। মুম্বাইতে ফিরে এসে কিংফিশার ক্যালেন্ডার, পন্ডস, ডাভের মতো টিভি বিজ্ঞাপনে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে কারিশমার।

২০১২ সালে অভিষেক বচ্চনের সঙ্গে ভারতের মোবাইল ফোন সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান আইডিয়ার বিজ্ঞাপনে দেখা যায় তাকে। একই বছর সালমান খানের সঙ্গে একটি বিজ্ঞাপনেও কাজ করেন তিনি। কয়েকদিন পর সালমানের টিভি শো বিগ-বসের মাধ্যমে ব্যাপক পরিচিতি পেয়ে যান লন্ডনে বেড়ে ওঠা এই মডেল।

অভিনয়ের পাশাপাশি বছর সাতেক আগে স্পোর্টস কমেন্ট্রি নিয়ে কাজ শুরু করেন কারিশমা। মূলত খেলাধুলাকে ভালবেসেই এ পথে চলা শুরু। ডিবিসি নিউজকে দেয়া সাক্ষাৎকারে কারিশমা কোটাক বলেন, বাংলাদেশে প্রথম এলাম। ভালো লাগছে দেশটা। আসলে আগে অভিনয় করতাম। বলিউডে কয়েকটা সিনেমাও করেছি। সালমান খানের সাথে বিগবসে কাজ করেছি। এখন খেলাধুলার সঙ্গে কাজ করছি। আমি এটা বেশ উপভোগ করি।

কারিশমা আরও বলেন, আগে ক্রিকেট বক্সিংসহ অন্যান্য খেলার উপস্থাপনা করতাম। কে স্পোর্টস এর মাধ্যমে ফুটবলে এলাম। বঙ্গবন্ধুর নামে টুর্নামেন্টে। ভাবছি এখন থেকে ফুটবলের সঙ্গেই থাকবো।

বিশ্বজুড়ে শিশুদের কম্পিউটার আর মোবাইল ফোন আসক্তি যখন নতুন সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে, তখন মা-বাবার প্রতি আহ্বান জানিয়ে কারিশমা বলেন, বিশ্বজুড়ে যুদ্ধ, বিভেদ, দন্দ্ব চলছেই। কিন্তু ফুটবলে মানে খেলাধুলায় কোন দন্দ্ব নেই। তাই আমি মা-বাবাদের বলবো, আপনার সন্তানকে খেলাধুলার সুযোগ দিন। বিশেষ করে ফুটবলে। কারণ খেলাধুলায় পারে আপনার সন্তানকে সুনাগরিক বানাতে।

আরআইএস 
 

আরও পড়ুন