• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ৭, ২০১৯, ০৬:৪৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ৭, ২০১৯, ০৬:৪৪ পিএম

ঘাটতি পূরণে কাজ করছেন মিরাজ

ক্রীড়া ডেস্ক
ঘাটতি পূরণে কাজ করছেন মিরাজ
মেহেদি হাসান মিরাজ। ছবি : সংগৃহীত

দেশের ক্রিকেটে বেশ সম্ভাবনা নিয়েই আগমন ঘটেছিল মেহেদি হাসান মিরাজের। অনেকে তাকে দেখছিলেন ভবিষ্যতের অধিনায়ক হিসেবে। একসঙ্গে তিন ফরম্যাটেই দাপিয়ে বেড়িয়েছেন তিনি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে টি-টোয়েন্টি দল থেকে ছিটকে গেছেন এই অলরাউন্ডার। 

ঘরের মাঠে ত্রিদেশীয় সিরিজের পর তার জায়গা হয়নি ভারত সফরের টি-টোয়েন্টি দলেও। তাকে ছাড়াই প্রথমবারের মতো ভারতকে এই ফরম্যাটে হারিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। তবে টি-টোয়েন্টিতে জায়গা না পেলেও টেস্ট দলে ঠিকই আছেন মিরাজ। তার প্রস্তুতিটাও নিচ্ছেন জোরেশোরে। 

বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) মিরাজ জানালেন নিজের ঘাটতি পূরণে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। মিরাজ বলেন, ‘আমি শেষ এক সপ্তাহ খুব ভালো একটা ট্রেনিং করেছি। আমি ফিজিক্যাল ও ফিটনেস নিয়ে কাজ করেছি, জিম-রানিং এবং বোলিং-ব্যাটিং দুটোই করেছি। বিশেষ করে আমার কোন জায়গায় ঘাটতি আছে সেই জায়গা গুলো নিয়ে কাজ করেছি। বোলিং-ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি ফিটনেস নিয়েও কাজ করেছি। ভারতে যাওয়ার আগে আমার এরকম একটা প্রস্তুতি দরকার ছিল, আর অবশ্যই আমার নিজের জন্য ভালো হবে যদি এটা মাঠে প্রয়োগ করতে পারি। শতভাগ দিতে পারলে আমার জন্য ভালো হবে।’

তিনি আরও জানান, ‘আমি গত দুই-আড়াই বছর তিন ফরম্যাটেই খেলছি। এখন হয়তো টেস্ট দলে আছি, তবে আমার কাছে মনে হয় যে সময়টা পেয়েছি আমি নিজেকে আরও পরিপূর্ণ ক্রিকেটার হিসেবে তৈরি করতে পারছি। কারণ গত ১০-১২ দিন যে কাজটা করেছি এমন সুযোগ আগে থেকেই চাচ্ছিলাম। একটা সময় নিয়ে ব্যাটিং-বোলিং-ফিজিক্যাল যে ঘাটতি রয়েছে সেগুলো ইনপ্রুভ করার জন্য লম্বা সময় দরকার। আমি তো চাই লম্বা সময় ক্রিকেট খেলতে।’

ক্যারিয়ার দীর্ঘ করতে এই অনুশীলনগুলো কাজে লাগবে বলে মনে করেন মিরাজ, ‘লং টাইম খেলার জন্য শারীরিক ফিটনেস স্কিল অনেক ডেভেলপ করতে হয়। কারণ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট যখন খেলি তখন এক জায়গায় পড়ে থাকলে টিকে থাকতে পারবো না। দিনে দিনে অনেক উন্নতি করতে হবে এবং অনেক ওপরে যেতে হবে। এই সময়টা আমার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ, এটা আমি হয়তো কাজে লাগাতে পারবো সামনের দিনগুলোতে। এসব ছোট ছোট জিনিস নিয়ে আমি যে কাজ করেছি, এগুলো এক সময় কাজে লাগবে বলে আমি মনে করি।’

এমএইচবি

আরও পড়ুন