• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ, ২০২১, ২০ ফাল্গুন ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৪, ২০২১, ০৮:৫২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২৫, ২০২১, ১০:৪৮ এএম

‘প্রধানমন্ত্রী, আপনি প্রথম টিকাটা নিন’

‘প্রধানমন্ত্রী,  আপনি প্রথম টিকাটা নিন’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রথম করোনার টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে জনমনের সন্দেহ দূর করতে বলেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ সময় সব মানুষের জন্য বিনা মূল্যে টিকা নিশ্চিত করারও দাবি জানান তিনি।

রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে নাগরিক ঐক্যের উদ্যোগে ‘গণ-অভ্যুত্থানে দিবসের ডাক স্বৈরাচার নিপাত যাক, গণতন্ত্র মুক্তি পাক’ শীর্ষক আলোচনা সভায় ফখরুল এ আহ্বান জানান।

মির্জা ফখরুল বলেন, “পৃথিবীর সভ্য দেশগুলোতে যা করেছে যুক্তরাজ্যে রানি নিজে প্রথম টিকা নিয়েছেন, রাশিয়াতে পুতিন নিয়েছেন, আমেরিকাতে বাইডেন নিয়েছেন। আমি বলব, প্রধানমন্ত্রী আপনি আজকে প্রথম টিকাটা নিন। নিয়ে মানুষকে বলেন যে, এটাতে ভয়ের কিছু নেই। তাহলে দেখবেন, মানুষের আস্থা ফিরে আসবে।”

বিএনপির মহাসচিব অভিযোগ করে বলেন, ‘‘এই সরকার আমাদের মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। রিজেন্ট হাসপাতাল থেকে শুরু করে কীভাবে লুট করেছে। ভ্যাকসিন নিয়ে তারা একই কাজ শুরু করেছে।”

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘‘করোনার টিকা আমাদের অধিকার। আজকে আমাদের এই টিকা নিয়ে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এটা ব্যক্তিবিশেষ ২-৪ জনকে নয়, এই টিকা সবাইকে দিতে হবে। রিকশাওয়ালা, কৃষক, আমার ফুটপাতের দোকানদারসহ সবার জন্য টিকা নিশ্চিত করতে হবে।” 

জাফরুল্লাহ আরো বলেন, ‘‘মানুষের মনে সন্দেহ দূর করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি আবেদন করেছিলাম, উনি পহেলা টিকা নেবেন। বলেছিলাম— আপনি ভয় পাবেন না, আমার নাম থাকলে আমিও টিকা নিতে রাজি আছি। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আগামী বুধবারে টিকা দেবেন না। উনি অন্ধকারে অন্তরীণ থেকে ওখান থেকে আওয়াজ দিয়ে উদ্বোধন করবেন। ভারতেও একই টিকা নরেন্দ্র মোদিও নেননি।”

আলোচনা সভায় মাহমুদুর রহমান মান্নার সভাপতিত্বে ও কেন্দ্রীয় নেতা শহীদুল্লাহ কায়সারের পরিচালনায় আরো বক্তব্য দেন কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাইফুল হক, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক শওকত মাহমুদ, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সাদেক আহমেদ খান বক্তব্য দেন।