• ঢাকা
  • সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭
প্রকাশিত: জুলাই ৭, ২০২০, ০৮:৫৩ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জুলাই ৭, ২০২০, ০৮:৫৩ এএম

যশোর ৬ ও বগুড়া-১ আসনের উপনির্বাচন নিয়ে আ. লীগের ব্যস্ততা

জাগরণ প্রতিবেদক
যশোর ৬ ও বগুড়া-১ আসনের উপনির্বাচন নিয়ে আ. লীগের ব্যস্ততা

যশোর-৬ (কেশবপুর) ও বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনের উপনির্বাচনে জয়ের ধারা অব্যাহত রাখতে চায় আওয়ামী লীগ। আগামী ১৪ জুলাই অনুষ্ঠেয় এ দুই উপনির্বাচনে দলীয় প্রার্থীকে জয়ী করতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা নিয়ে মাঠে নামছে দলটি। নির্বাচনে মূল প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি তাদের দলীয় ফোরামে করোনা পরিস্থিতিতে উপনির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ায় জয়ের বিষয়ে আওয়ামী লীগ অনেকটাই নির্ভার।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দুটি আসনের নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি তুলনামূলক কম হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে সব মহল থেকে। দেশের কয়েকটি জেলার মতো বগুড়াও বন্যার কবলে পড়ার কারণে বগুড়া-১ আসনের উপনির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি আরও কম হতে পারে। এ অবস্থায় দুটি আসনের উপনির্বাচন জনমনে ঠিক কতটা আগ্রহ সৃষ্টি করতে পারছে, তা নিয়েও চলছে আলোচনা।

২৮ জানুয়ারি জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ইসমাত আরা সাদেকের মৃত্যুতে যশোর-৬ আসনটি শূন্য হয়। একই দলের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান ১৮ জানুয়ারি মারা যাওয়ায় বগুড়া-১ আসনটি শূন্য হয়। ২৯ মার্চ এ দুটি আসনে ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করে নির্বাচন কমিশন (ইসি) উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করলেও করোনার কারণে ভোটের সপ্তাহখানেক আগে নির্বাচন স্থগিত করা হয়। গত শনিবার একসঙ্গে দুটি আসনের উপনির্বাচনের নতুন তারিখ ঘোষণা করে ইসি। দুটি উপনির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সংবিধান নির্ধারিত ১৮০ দিন ১৫ জুলাই শেষ হতে যাচ্ছে। ফলে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে করোনার মধ্যেই ভোট গ্রহণের আয়োজন করতে হচ্ছে বলে জানিয়েছে ইসি।

আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, দুটি আসনই আগে থেকে আওয়ামী লীগের দখলে। গত তিন মেয়াদে এখান থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। তাদের দাবি, দলের দুই প্রার্থী যশোর-৬ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার এবং বগুড়া-৬ আসনে প্রয়াত এমপি আবদুল মান্নানের স্ত্রী ও সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাহাদারা মান্নান জনপ্রিয় ও শক্তিশালী প্রার্থী। তাদের বিজয়ের ব্যাপারে সন্দিহান নয় দল। এরপরও এই উপনির্বাচনকে হালকা করে দেখা হচ্ছে না। দলীয় দুই প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে করোনা সংকটের মধ্যেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সম্ভব সব ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

তারা বলেছেন, নতুন করে ঘোষিত নির্বাচনের তারিখ অনুযায়ী প্রচার-প্রচারণা চালানোর জন্য মাত্র এক সপ্তাহের মতো সময় পাওয়া যাচ্ছে। এর মধ্যেই কতদূর কী করা যায়, সেটা ভেবে দেখা হবে। আজকালের মধ্যে আলোচনা করে কেন্দ্রীয় কোনো কোনো নেতাকে নির্বাচনি কার্যক্রম সমন্বয়ের দায়িত্ব দেয়া হতে পারে।

করোনার মধ্যেই জমে উঠেছে যশোর-৪ আসনের উপনির্বাচন

এই আসনের উপনির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করায় নড়েচড়ে বসেছেন দলীয় নেতাকর্মী ও ভোটাররা। মাত্র ১০ দিন সময় হাতে নিয়ে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করায় সময় নষ্ট না করে মাঠে নেমে পড়েছেন প্রার্থীরাও। করোনা পরিস্থিতিতে কেশবপুরের মানুষ প্রায় সাড়ে ৫ মাস এমপিশূন্য থাকায় নির্বাচনকে স্বাগত জানিয়েছেন। তবে অধিকাংশ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভোট গ্রহণের আয়োজনের দাবি তুলেছেন।

যশোর-৬ আসনে মোট ভোটার দুই লাখ তিন হাজার ১৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ দুই হাজার ১২২ জন এবং নারী ভোটার এক লাখ ৮৯৬ জন। মোট ভোটকেন্দ্র ৭৯টি এবং ভোট কক্ষের সংখ্যা ৩৭৪টি।

করোনার সঙ্গে বন্যার কবলের মধ্যে বগুড়া-১ আসনে ভোট :বগুড়া ব্যুরো ও সারিয়াকান্দি প্রতিনিধি জানান, করোনা সংক্রমণের মধ্যেই বন্যার কবলে বিপর্যস্ত বগুড়া-১ আসনের দুই উপজেলা সোনাতলা ও সারিয়াকান্দির মানুষ উপনির্বাচন নিয়ে শঙ্কিত। ১৪ জুলাইয়ের ভোট নিয়ে তাদের আগ্রহ কম। বরং প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের সভা-সমাবেশসহ সম্ভাব্য নির্বাচনি তৎপরতা নিয়ে আতঙ্কিত অনেকেই। এমন পরিস্থিতিতে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা নির্বাচন পিছিয়ে করোনা সংকট শেষে আয়োজনের দাবি জানিয়েছেন।

বগুড়া-১ আসনের উপনির্বাচনে মোট সাতজন প্রার্থী অংশ নিচ্ছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের সাহাদারা মান্নান, বিএনপির একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির, জাতীয় পার্টির মোকছেদুল আলম, খেলাফত আন্দোলনের নজরুল ইসলাম, এনপিপির আব্দুল হাই মণ্ডল, পিডিপির মো. রনি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ইয়াসির রহমাতুল্লাহ ইন্তাজ। এখানে মোট ভোটার তিন লাখ ১৭ হাজার ৫৬৯ জন এবং মোট কেন্দ্র ১২৩টি।

কেএপি