• ঢাকা
  • শনিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
প্রকাশিত: অক্টোবর ১, ২০২১, ০১:৩৫ এএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২১, ০৭:৩৫ পিএম

রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনায় মামলা

রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনায় মামলা
ফাইল ফটো

কক্সবাজার উখিয়ার কুতুপালংয়ে রোহিঙ্গাদের শীর্ষস্থানীয় নেতা মুহিবুল্লাহকে হত্যার ঘটনায় উখিয়া থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

উখিয়া-টেকনাফ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাকিল আহমেদ জানান, বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) রাতে উখিয়া থানায় অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন নিহত মুহিবুল্লাহর ছোট ভাই হাবিবুল্লাহ। তবে সেখানে আসামির কোনো সংখ্যা উল্লেখ করা হয়নি।

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেলে উখিয়া কুতুপালং লম্বাশিয়া ক্যাম্প-১ ইস্ট ২ নম্বর কেন্দ্র জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন করা হয়।  তার জানাজায় হাজারো মানুষ অংশ নেন। 

এর আগে বুধবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে কুতুপালং মেগা ক্যাম্পের মধ্যে লম্বাশিয়ায় অবস্থিত এআরএসপিএইচ কার্যালয়ে একদল অস্ত্রধারী গুলি করে হত্যা করে রোহিঙ্গাদের শীর্ষ নেতা মুহিবুল্লাহকে (৫০)। ৯ সন্তানের জনক ছিলেন মুহিবুল্লাহ। 

মিয়ানমারে থাকতে তিনি একটি স্কুলে শিক্ষকতা করতেন বলে ক্যাম্পের বাসিন্দাদের কাছে তিনি ‘মাস্টার মুহিবুল্লাহ’ নামে পরিচিত ছিলেন।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বুধবার ওই এলাকায় কোনও অভিযান ছিল না। ধারণা করা হচ্ছে, রোহিঙ্গাদের মধ্যে গোষ্ঠীগত দ্বন্দ্বের জেরে তাকে গুলি করা হয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম বলেছেন, কারা এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। 

নিহত মুহিবুল্লাহ রোহিঙ্গাদের মধ্যে জনপ্রিয় নেতা ছিলেন। রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে কথা বলার জন্য তিনি জাতিসংঘে গিয়েছিলেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গেও সাক্ষাত করেছিলেন। 

রোহিঙ্গাদের অধিকার দিয়ে তিনি সব সময় বিদেশি বিভিন্ন প্রতিনিধি দলের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

মুহিবুল্লাহ রোহিঙ্গা সংগঠন নিয়ে কাজ করা আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যানিটি রাইটস (এআরএসপিএইচ)-এর চেয়ারম্যান ছিলেন। ২০১৭ সালে ২৫ আগস্ট মিয়ানমার সেনাদের হাত থেকে প্রাণে বাঁচতে মংডু টাউনসিপের সিকদার পাড়া প্রাম থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন তিনি। আশ্রয় নেন কক্সবাজারের উখিয়া ক্যাম্পে।

গত ২০১৯ সালে মাসের ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা নাগরিকদের বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়ার দুই বছর পূর্তি উপলক্ষে উখিয়ার কুতুপালং এক্সটেনশন-৪ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মহাসমাবেশ করে রোহিঙ্গারা। এ সমাবেশে পাচঁ লাখ রোহিঙ্গা জড়ো হন। রোহিঙ্গাদের অধিকার আদায়ে গঠিত এআরএসপিএইচ চেয়ারম্যান রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ এ সমাবেশে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। তখন থেকে তিনি আলোচনায় উঠে আসেন। 

২০১৯ সালে ১৭ জুলাই ধর্মীয় কারণে নির্যাতনের শিকার বিশ্বের ১৭টি দেশের ২৭ জন প্রতিনিধি হোয়াইট হাউসের ওভাল অফিসে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তাদের মধ্যে একজন ছিলেন মুহিবুল্লাহ।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসী গ্রুপের হাতে গত তিন বছরে অর্ধশত লোক খুন হয়েছেন।

জাগরণ/এসএসকে