• ঢাকা
  • রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা

মুজিববর্ষ
প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৭, ২০২০, ০২:১৬ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ১৭, ২০২০, ০২:১৬ পিএম

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি 

নয়াপল্টনে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল

জাগরণ প্রতিবেদক
নয়াপল্টনে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল

বিএনপি চেয়ারপারসনর সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা ও সাজা প্রত্যাহারের দাবিতে বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল করেছে। 

শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় ঘুরে আবারও বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। 

মিছিল শেষে এক পথসভায় রিজভী বলেন, ‘গণতন্ত্রের মা’ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্রের শত্রুদের সঙ্গে কোনোদিন আপস করেননি বলেই তিনি গণমানুষের অধিকারের পক্ষের একজন আপসহীন নেত্রীতে ভূষিত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ক্ষোভ ও অন্তরের জ্বালা একটাই, আর তা হলো বেগম জিয়া তার চেয়ে সর্বাধিক জনপ্রিয়। তাকে কারাগারে বন্দী করে ক্রমান্বয়ে পঙ্গু করে ফেলা হয়েছে। 

তিনি বলেন, গুরুতর অসুস্থ ব্যক্তিকে জামিন না দেয়ায় সারাদেশের মানুষের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশার জন্ম নিয়েছে। এই ঘটনায় প্রমাণ হয় যে, রাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ওপর সরকারের নগ্ন হস্তক্ষেপ কত নিষ্ঠুর কত নির্মম। সরকার বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতাকে খাটো করে দেখানোর চেষ্টা করলেও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বেগম জিয়ার শোচনীয় শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে সংবাদ পরিবেশিত হচ্ছে।

‘বাংলাদেশের গণমাধ্যমগুলো সরকারি হুমকির চাপে বেগম জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে সম্পূর্ণ সংবাদ পরিবেশন করতে পারছে না। আমি আবারও অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং তাকে তার পছন্দের হাসপাতালে সুচিকিৎসার সুযোগ দানের দাবি জানাচ্ছি। পাশাপাশি কারাবন্দি সকল নেতাকর্মীরও নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি।

মিছিলে অংশগ্রহণকারী নেতাকর্মীরা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা ও সাজা প্রত্যাহারের দাবিতে সোচ্চার কণ্ঠে শ্লোগান দেন।

বিক্ষোভে নেতৃত্ব দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। অংশ নেন- তাঁতী দলের আবুল কালাম আজাদ, মৎস্যজীবী দলের আবদুর রহিম, তাঁতী দলের মুজিবুর রহমান, গোলাপ মঞ্জুর, জেএম আনিসুর রহমান, ফিরোজ কিবরিয়া, রেজাউল করিম রানা, মৎস্যজীবী দলের ওমর ফারুক পাটোয়ারী, জহিরুল ইসলাম বাশার, হান্নান, কবির মাস্টার, ওয়াজেদ আলী, তাঁতী দলের তাজুল ইসলাম, মৎস্যজীবী দলের তানভীর আহমেদ, ছাত্রদলের মামুন হোসেন ভূঁইয়া, রাজু আহমেদ, আখতার আহসান দুলাল, রেজাউল করিম রাজু, আলমগীর কবির, নাসির হোসেন, আকরাম আহমেদ, রতন চিশতী, ফিরোজ মাহমুদসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী।

টিএস/টিএফ
 

আরও পড়ুন