• ঢাকা
  • বুধবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২ ফাল্গুন ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৯, ২০২১, ০৪:১১ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ১৯, ২০২১, ০৪:১১ পিএম

সংকটাপন্ন হিমালয়ী শকুন উদ্ধার

সংকটাপন্ন হিমালয়ী শকুন উদ্ধার

ভোলায় সংকটাপন্ন হিমালয়ী গৃধিণী প্রজাতির একটি শকুন উদ্ধার করেছে বনবিভাগ। 

মঙ্গলবার ভোলার সদর উপজেলা ইলিশা ইউনিয়নের বটতলা এলাকা থেকে শকুনটি উদ্ধার করা হয়। 

ভোলা বনবিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র সংরক্ষণ কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম ও সদর উপজেলা রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম জানান, শকুনটি উড়তে উড়তে সদর উপজেলার ইলিশা ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে মজিদ মেম্বারের বাড়ির উঠানে পড়ে যায়। এ সময় স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ বন বিভাগকে জানায়। বন বিভাগের একটি দল সেখান থেকে শকুনটি উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বন বিভাগে নিয়ে যায়।  

শকুনটিকে বন বিভাগের সংরক্ষিত বনের গহীন অরণ্যে অবমুক্ত করা হবে বলে জানান তারা।

ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন সোসাইটির কো-অর্ডিনেটর ও বন্যপ্রাণী গবেষক সামিউল মেহেসানিন ইমেইলের মাধ্যমে শকুনটির ছবি দেখে এটিকে হিমালয়ী শকুন বা হিমালয়ান গৃধিনী বলে চিহ্নিত করেন। 

হিমালয়ী গৃধিণী প্রজাতির এই শকুন বাংলাদেশে সচরাচর দেখা যায় না। ধারণা করা হচ্ছে, উত্তরে প্রচণ্ড শীতের কারণে হিমালয় থেকে শকুনটি খাবারের সন্ধানে ভোলায় এসেছে। 

আইইউসিএন এর রেড লিস্টের অবস্থান অনুযায়ী এই প্রজাতির শকুন প্রায় সংকটাপন্ন। এই প্রজাতির শকুন নিকট ভবিষ্যতে বিপদাপন্ন তালিকাভুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। 

সামিউল মেহেসানিন বলেন, “পৃথিবীতে দ্রুততম বিলুপ্ত হতে চলা প্রাণী শকুন। তাই শকুন মাত্রই বিশ্বে ‘মহাবিপন্ন’। বাংলাদেশে শকুনের পরিস্থিতি খুবই খারাপ। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘের (আইইউসিএন) হিসেবে বাংলাদেশে মাত্র ২৬৮টি শকুন রয়েছে।”