• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: জুন ২০, ২০১৯, ১১:২২ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ২০, ২০১৯, ১২:০৮ পিএম

যেভাবে পাওয়া গেল সোহেল তাজের ভাগ্নে সৌরভকে

ময়মনসিংহ সংবাদদাতা
যেভাবে পাওয়া গেল সোহেল তাজের ভাগ্নে সৌরভকে

অপহরণের ১১ দিন পর ময়মনসিংহের তারাকান্দার মধুপুরের বটতলার রাইস মিলের সামনে থেকে বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজের ভাগ্নে ইফতেখার আলম সৌরভকে (২৫) উদ্ধার করেছে পুলিশ। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে পুলিশ তাকে নিয়ে ঢাকার বনানীতে রওনা হয়েছে।
 
ময়মনসিংহের তারাকান্দার মধুপুর বটতলা বাজারের জামিল অটোরাইস মিলের সামনে থেকে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজের ভাগ্নে ইফতেখার আলম সৌরভের (২৫) হদিস মেলার তথ্য প্রথমে তার পরিবারকে জানায় মিলের ম্যানেজার সমির। 

এরপর চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের ডিসি মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) শাহ আবিদ হোসেনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। পরে পুলিশ সুপার তিনি নিজেই বেরিয়ে পড়েন সৌরভকে উদ্ধারে। সকাল সোয়া ৬টার দিকে তিনি সৌরভকে অক্ষত ও সুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করে নিজ কার্যালয়ে নিয়ে আসেন। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তাকে পুলিশ হেফাজতে ঢাকায় তার নিজ স্বজনদের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। 

নিখোঁজ হওয়ার ১১ দিনের মাথায় সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজের ভাগ্নে সৌরভকে এভাবেই উদ্ধারের বিষয়টি জানান, জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) শাহ আবিদ হোসেন। পুলিশ সুপার বলেন, ভোর ৫টা থেকে সোয়া ৫টার দিকে সমির নামে অটোরাইস মিল ম্যানেজার সৌরভের পরিবারকে প্রথমে ফোন করে তাকে পাওয়ার তথ্য জানায়। 
এরপর চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের ডিসি মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ আমাকে ফোন করে বিষয়টি জানালে আমি ৫টা ৫০ মিনিটের দিকে তারাকান্দার বটতলা বাজারে পৌঁছে তাকে উদ্ধার করে এখানে নিয়ে আসি।

শাহ আবিদ হোসেন বলেন, সৌরভ সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন। তবে যেহেতু ১১ দিন তিনি নিখোঁজ ছিলেন, এজন্য তার পোশাক পুরাতন ছিল। আমার এখানে নিয়ে আসার পর তিনি খাওয়া-দাওয়া করেছেন। 
তিনি বলেন, আমি সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী স্যারকে ফোন করে বিষয়টি জানিয়েছি। তিনি বলেছেন, সৌরভের বাবা-মা খুব উদ্বিগ্ন অবস্থায় রয়েছেন। পরে পরিবারের চাহিদা অনুসারে তাকে ঢাকায় পাঠিয়ে দিয়েছি। 

উল্লেখ্য, গত ৯ জুন চট্টগ্রামের মিমি সুপার মার্কেটের আগোরার সামনে থেকে সৌরভ অপহৃত হন।

কেএসটি

Islami Bank