• ঢাকা
  • শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০, ১৫ কার্তিক ১৪২৭
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০, ০১:২৩ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০, ০১:২৩ পিএম

আত্রাইয়ে টর্নেডোর আঘাতে বিধ্বস্ত দুইশতাধিক ঘর, আহত ৫

আত্রাই (নওগাঁ) সংবাদদাতা 
আত্রাইয়ে টর্নেডোর আঘাতে বিধ্বস্ত দুইশতাধিক ঘর, আহত ৫
টর্নেডোর আঘাতে দুই গ্রামের প্রায় দুই শতাধিক ঘরবাড়ি লন্ডভন্ড হয়েছে। ছবি-জাগরণ

নওগাঁর আত্রাইয়ে আকস্মিক টর্নেডোর আঘাতে দুই গ্রামের প্রায় দুই শতাধিক ঘরবাড়ি লন্ডভন্ড হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার পাঁচুপুর ইউনিয়নের পাঁচুপুর ও জগদাশ গ্রামে। 

গাছপালা ও দেয়াল চাপা পড়ে শিশুসহ আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৫জন। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়াও বিদুৎতের ৫টি খুটি ওপরে যাওয়ায় বিদুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার ও সড়কে পড়ে থাকা গাছপালা অপসারণের চেষ্টা চালাচ্ছে।

এ ব্যাপারে জগদাশ গ্রামের আহত আলিমদ্দিন ও জালাল হোসেন জানান, মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে আকস্মিকভাবে প্রবল বেগে বাতাসে তাদের ঘরের চাল উড়ে যায়। এবং ঘরের পাশে থাকা গাছের ডাল তাদের শরীরের উপরে চাপা পড়ে। কয়েক মিনিট স্থায়ী এই ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে যায় বসত ঘরবাড়ি। একই পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন গ্রামের প্রায় দেড় শতাধিক পরিবার।

এ ব্যাপারে উপজেলা ফায়ার সার্ভিস স্টেশন অফিসার নিতাই চন্দ্র ঘোষ জানান, মঙ্গলবার রাতে আকস্মিক টর্নেডোর আঘাত হানার ফলে সড়কে গাছপালা পরে যোগাযোগ ব্যাবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়লে আমাদের একটি ইউনিট কাজ করে    

এ ব্যাপারে উপজেলার পাঁচুপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আফসার আলী প্রামানিক বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবং টর্নেডোর ঘটনাটি আসলেই খুবই দুঃখজনক। তিনি আরও জানান, ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তার জন্য তালিকা প্রস্তুত করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ছানাউল ইসলাম বুধবার সকালে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করে জানান, হঠাৎ করেই টর্নেডোর আঘাতে উপজেলার পাঁচুপুর ও জগদাশ গ্রামের প্রায় দেড় শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে মাটির সঙ্গে মিশে গেছে। এমন বহু পরিবার এখন খোলা আকাশের নিচে রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থদের শুকনা খাবার দেওয়া হয়েছে এবং ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের তালিকা প্রস্তুত করা হচ্ছে। তালিকা শেষে ক্ষতিগ্রস্থদের গৃহ নির্মাণের সহায়তার আশ্বাস দেন তিনি।

জাগরণ/এমএইচ

আরও পড়ুন