• ঢাকা
  • শনিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
প্রকাশিত: অক্টোবর ১১, ২০২১, ০৬:২৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ১১, ২০২১, ১২:২৭ পিএম

নদী ভাঙ্গন থেকে রক্ষার দাবীতে রাস্তায় চরাঞ্চলবাসী

নদী ভাঙ্গন থেকে রক্ষার দাবীতে রাস্তায় চরাঞ্চলবাসী
ছবি- জাগরণ।

নরসিংদীর বৃহত্তর রায়পুরা উপজেলার চাঁনপুরে নদী ভাঙ্গন থেকে গ্রামবাসীকে রক্ষার দাবী এবং মেঘনা নদী থেকে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। আজ সোমবার দুপুরে নরসিংদী প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন করা হয়। এতে চাঁনপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন পেশার তিন শতাধিক মানুষ অংশ নেন।

মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন এলাকাবাসী। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, চাঁনপুর ইউনিয়নের মাঝের চর মৌজায় দীর্ঘদিন ধরে অপরিকল্পিতভাবে বালু মহাল সৃষ্টি করে ইজারা দিয়েছে জেলা প্রশাসন। ১৫ থেকে ১৬ বছর ধরে ইজারাদাররা নির্ধারিত স্থান ছাড়াও তাদের ইচ্ছেমাফিক যত্রতত্র অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে। ফলে রায়পুরা, চাঁনপুর ও পাড়াতলি ইউনিয়নের তিন গ্রাম ধীরে ধীরে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। প্রতি বছরই গ্রামের বাড়িঘর ও কৃষিজমি নদী গর্ভে বিলীন হচ্ছে। বাড়িঘর হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছেন গ্রামের মানুষ। বালু উত্তোলন বন্ধের জন্য একাধিকবার জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে লিখিত আবেদন জানালেও কার্যকরী কোনও পদক্ষেপ চোখে পড়ছেনা।

মানববন্ধন থেকে অবিলম্বে বালু মহালের নামে অপরিকল্পিত বালু উত্তোলন বন্ধের দাবি জানানো হয়। মাঝেরচর গ্রামের বাসিন্দা মুফতি আল আমিন জানান, দীর্ঘ পনেরো বছর ধরে মেঘনা নদীর গ্রামের পাশ্ববর্তী এলাকায় ২৫ থেকে ৩০টি ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে। ফলে কারণে রায়পুরা, চাঁনপুর ও পাড়াতলি ইউনিয়নের ছোটাবন, বাখরনগর ও সুলতানপুর গ্রাম অনেকাংশে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

বালু উত্তোলন বন্ধ না হওয়ায় তিন ইউনিয়নের আরও ৬/৭টি গ্রামের জমি, বাড়িঘর নদী গর্ভে বিলীন হয়ে প্রাকৃতিক দুর্যোগ সৃষ্টি হতে পারে। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, চানপুর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আব্দুল্লাহ আল মামুন, মাঝেরচর গ্রামের শিক্ষক কাউছার মাহমুদ ও কৃষক সাফি উদ্দিন সহ আরো অনেকে।

 

জাগরণ/এসকেএইচ