• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: আগস্ট ৩০, ২০১৯, ০৩:০৬ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : আগস্ট ৩০, ২০১৯, ০৩:১২ পিএম

অসুস্থ শাকিবের সাম্রাজ্যে আঘাত

সুহৃদ জাহাঙ্গীর
অসুস্থ শাকিবের সাম্রাজ্যে আঘাত

ঢাকাই সিনেমার নায়ক শাকিব খান জ্বরে আক্রান্ত। বদিউল আলম খোকনের পরিচালনায় ‘আগুন’ সিনেমার শুটিং নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন তিনি। এতে তার বিপরীতে অভিনয় করছেন নবাগত জাহরা মিতু। এরই মধ্যে হঠাৎ করে জ্বরে পড়েন নায়ক। জ্বরের কারণে শুটিং বন্ধ। প্রায় এক সপ্তাহ ধরে জ্বরে ভুগছেন তিনি। তবে আশার কথা হলো ডেঙ্গু হয়নি শাকিবের।

শাকিব জানান, তার জ্বর-সর্দি হয়েছে ডেঙ্গু হয়নি। এটা মৌসুমি জ্বর। আপাতত শুটিং করতে পারছেন না। সুস্থ হয়েই শুটিংয়ে ফিরবেন। তবে সূত্র বলছে অন্যকথা। জ্বরের চেয়েও বড় রোগ বাসা বেঁধেছে তার মনে। আর সেটা হলো দুঃচিন্তা। সেটা গত ঈদুল আজহার পর থেকেই। তার অভিনীত জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত ‘মনের মতো মানুষ পাইলাম না’ সিনেমা ফ্লপের মধ্যে দিয়ে। ঈদে মুক্তি পেয়ে সিনেমাটি দারুণভাবে ব্যর্থ হয় দর্শকপ্রিয়তা অর্জনে। সেই থেকে নায়ক, পরিচালক ও প্রযোজক হতাশায় ভুগতে থাকেন।

এক সূত্রে জানা যায়, হতাশা কাটাতে প্রযোজক ঈদের পরপরই সিঙ্গাপুর চলে যান। এখনো তিনি সেখানেই অবকাশ যাপন করছেন। পরিচালক জাকির হোসেন রাজু নিজেকে অনেকটা আড়ালে রেখে চলাফেরা করেন। আর নায়ক শাকিব খান হতাশায় ঈদের পর থেকেই অসুস্থতায় ভুগছেন। সেই সাথে তার প্রযোজিত ঘোষিত চারটি সিনেমারই শুটিং বন্ধ রাখেন। কারণ এই সিনেমাগুলোরও লগ্নিকারক তার অভিনীত ‘মনের মতো মানুষ পাইলাম না’ সিনেমার প্রযোজক। মনে করা হচ্ছে, তার সবুজ সংকেত না পাওয়া পর্যন্ত সিনেমাগুলোর নির্মাণ কাজ আর শুরু হচ্ছে না। 

শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের সাথে তাদের সন্তান আব্রাম খান জয়

শাকিব নিজের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এসকে ফিল্মস থেকে মালেক আফসারির পরিচালনায় ‘পাসওয়ার্ড ২’, কাজী হায়াতের পরিচালনায় ‘বীর’, বদিউল আলম খোকনের পরিচালনায় ‘ফাইটার’ ও হিমেল আশরাফের পরিচালনায় ‘প্রিয়তমা’ নামে চারটি চলচ্চিত্র নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন ঈদের আগে।
 
চিত্রনায়ক মান্নার অকাল মৃত্যু বাংলাদেশের সিনেমা জগতে প্রতিষ্ঠিত করে শাকিব খানের একক রাজত্ব। এরপর থেকেই শাকিব সাম্রাজ্যে হানা দেয়ার প্রতিভা দেখা যায়নি কারও মধ্যেই। নেই এখনও। ফলে এককভাবে সুপারস্টার হয়েই রাজত্ব করছেন তিনি। বর্তমানে শাকিব খানই একমাত্র নায়ক যার সিনেমার জন্য হল মালিকদের অগ্রিম বুকিং দেয়া থাকে। কিন্তু সেই শাকিব খান নিজের সাম্রাজে্য নিজেই আঘাত হানেন বারবার। এরমধ্যে তার নায়িকা অপু বিশ্বাসকে বিয়ে করে গোপন রাখা, পরবর্তীতে তার সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটানো। যৌথ সিনেমার বিরুদ্ধে আন্দোলন করে তাতেই আবার যোগ দেয়া অতঃপর ছিটকে পড়া। দেশিয় সিনেমা বাদ দিয়ে ওপার বাংলায় ব্যস্ত হওয়া এবং সেখানে চুক্তিভঙ্গ করে নিষিদ্ধ হওয়া। সেই সাথে দেশিয় সিনেমায় নিজের সম্মানী আকাশচুম্বি হাঁকানো। কাউকে তোয়াক্কা না করার একটা প্রবণতাও চলে আসে তার মধ্যে। এটিই যেন কাল হয় তার ক্যারিয়ারের জন্য।

শাকিব ও বুবলি

সব কিছুর  মধ্যেই শাকিব সাম্রাজ্যের পতনের আলামত পাচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ। তবে তিলে তিলে গড়া এ সাম্রাজ্য এতো সহজেই ভাঙবে, এটাও মানতে নারাজ অনেকে। কারণ শাকিব খান ছাড়া দেশের সিনেমাশিল্প এখনও মৃতপ্রায়। খুড়িয়ে খুড়িয়ে হাঁটা এ শিল্পকে শাকিব খানই চাঙা করে রেখেছেন। কলকাতার একাধিক সুপাস্টারের সঙ্গে তিনি একাই বাংলাদেশের হয়ে লড়াই করে যাচ্ছেন। তাই শাকিব- সাম্রাজ্য ধ্বংস হওয়া সহজ নয়। আর যদি শাকিব খানের পতন হয় তাহলে ঢাকাই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিরই পতন হবে বলে ধারণা অনেকের। কারণ শাকিব খানের পর বাংলা সিনেমার হাল ধরার কোনো নায়ক আসেনি এখনও। পূর্বের ক্ষোভ থেকে বর্তমানে অনেকেই অকৃতজ্ঞ বলে সম্বোধন করে যাচ্ছেন।

মূলত শাকিব খানের এখন যে পতনের আওয়াজও উঠেছে; এটি একটি অযৌক্তিক আওয়াজ। চক্রান্ত ছাড়া শাকিব সাম্রাজ্যে হানা দেয়ার মতো এখনও কেউ তৈরি হয়নি ঢাকাই সিনেমায়। এ দিকে সবাই সরে পড়লেও পাশে এসে দাঁড়াচ্ছেন ভক্তরা।

এসজে