• ঢাকা
  • শনিবার, ২৮ মে, ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৬, ২০২২, ১২:৪২ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২৬, ২০২২, ১২:৪৩ এএম

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন

কাঞ্চন-নিপুণ পরিষদের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত

কাঞ্চন-নিপুণ পরিষদের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত
সংগৃহীত ছবি

মগবাজারের একটি কনভেনশন সেন্টারে মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) শিল্পী সমিতির নির্বাচনে প্যানেল পরিচিতির আয়োজন করে ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুণ পরিষদ।

সেখানে পুরো প্যানেল ও ভোটাদের সরব উপস্থিতি দেখা যায়। ছিলেন সিনিয়র অভিনেতা ও নির্মাতারা।

অনুষ্ঠানে একে বক্তব্য দেন প্যানেলের প্রার্থীরা। সর্বশেষ বক্তব্য দেন প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী ও একুশে পদকপ্রাপ্ত অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন। বক্তব্যের শেষে শিল্পী সমিতির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানকে অনেকটা হাসির ছলেই বিয়ে করতে বলেন তিনি। 

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, আমার ছোট ভাই জায়েদকে একটা কথা বলতে চাই। তার প্রয়াত মা তার মাগফেরাত কামনা করি। তিনি হয়তো ছেলেকে একটা কথা রেগে বলেছিলেন। কিন্তু বড় ভাই হিসেবে আমি বলতে চাই, শিল্পী সমিতি তো আছেই তুমি বিয়েটাও করো, তোমার সন্তান হোক আমরা মামা-কাকা হই। তোমাকে অনুরোধ করি, তুমি খালাম্মার কথা শোনোনি কিন্তু আমাদের কথা শোনো। এবার বিয়ে করো।’

এর আগে গত ২৩ জানুয়ারি মিশা সওদার-জায়েদ খান প্যানেলের পরিচিত সভায় বক্তব্যে কেঁদে কেঁদে জায়েদ খান বলেন, ‘আমার মা মৃত্যুর আগে বলে গেছেন তোর বিয়ে করতে হবে না, তুই শিল্পী সমিতি নিয়েই থাক।’ সে কথার পরিপ্রেক্ষিতেই কথাগুলো বলেন ইলিয়াস কাঞ্চন।

বক্তব্যে সবার কাছে ভোট ও ভালোবাসা চান ইলিয়াস কঞ্চন। তিনি বলেন, আমি একটু রাগি ছিলাম। কিন্তু নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন শুরুর পর আমি নিজেকে অনেক পরিবর্তন করেছি। অতি সাধারণ হয়ে গেছি। যারা নেতৃত্বে থাকে তাদের রাগ থাকলে চলে না। তাদের হতে হয় বিনয়ী। অনেকে হয়তো আড়ালে বলছেন কাঞ্চন এতো বড় নায়ক তোমরা কি উনার পাশে যেতে পারবে? তাদের বলি আমরা তো এইসব মানুষের সঙ্গে সারাজীবন থেকেছি। এইসব নৃত্যশিল্পী, ফাইটার, অভিনেতা এদের পাশাপাশি বসেই অভিনয় করে এসেছি। আজ কেনো পারবে না।'

ইলিয়াস কাঞ্চন আরও বলেন, আমরা স্বাধীন দেশের নাগরিক। স্বাধীন দেশের শিল্পী সমিতি। এই সমিতিকে আমরা কেনো রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মতো করবো। আমরা এখানে শান্তিতে অবাধে চলাফেরা করবো। এখানে শিল্পীরা সম্মানের সঙ্গে থাকবো। শিল্পী সমিতিতে এসে আপনাদের সেই সম্মান আমরা বৃদ্ধি করবো।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ দিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, এখানে যারা উপস্থিত হয়েছেন তাদের ধন্যবাদ। যারা আসেননি তাদেরও ধন্যবাদ। যারা ভোট দেবেন তাদের ধন্যবাদ আর যারা ভোট দেবেন না তাদেরও ধন্যবাদ। আর ধন্যবাদ ওই প্যানেলের প্রতি। কারণ তাদের জন্যই আমরা এই সুন্দর একটা প্যানেল তৈরি করতে পেরেছি। 

শিল্পী সমিতির ভোট অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৮ জানুয়ারি।

জাগরণ/এসএসকে/এমএ/কেপিএ