• ঢাকা
  • রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮
প্রকাশিত: আগস্ট ৩, ২০২১, ০৩:৩৯ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : আগস্ট ৩, ২০২১, ০৯:৩৯ এএম

মায়ের ছেড়ে যাওয়া আইসিইউতে এখনও লড়ছেন শিমুল

মায়ের ছেড়ে যাওয়া আইসিইউতে এখনও লড়ছেন শিমুল

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডে ছেলে শিমুল পালের (৪৩) জন্য আইসিইউ বেড ছেড়ে দেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আইসোলেশন ওয়ার্ডে মারা গিয়েছিলেন মা কানন প্রভা পাল। মায়ের ছেড়ে দেওয়া সেই আইসিইউ বেডে এখনও চিকিৎসা চলছে শিমুলের। তার অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। 

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের আইসিইউ ওয়ার্ডের ইনচার্জ ডা. রাজদ্বীপ বিশ্বাস বলেন, শিমুল এখনও আইসিইউতে আছেন। তার অবস্থা কিছুটা উন্নতির দিকে বলতে পারি। তবে এখনও মেশিন সাপোর্টে আছেন। 

তিনি বলেন, আইসিইউ সাপোর্টে শিমুলের অক্সিজেন স্যাচুরেশন ৯০-এর কাছাকাছি থাকে। প্রথমদিকে তার অক্সিজেন স্যাচুরেশন ৫০ থেকে ৬০-এর মধ্যে ছিল। আইসিইউতে তাকে এখন মিনিটে ৫০ লিটার অক্সিজেন দিতে হচ্ছে। আগে ৭০ লিটার অক্সিজেন দিত হতো। 

ডা. রাজদ্বীপ আরও বলেন, শিমুল পাল এখনও অক্সিজেন ছাড়া থাকতে পারেন না। প্রথম থেকেই রোগীর অবস্থা অনেক খারাপ ছিল। আমরা শিমুল পালকে সুস্থ করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি।

মঙ্গলবার দুপুরে শিমুল পালের শ্যালক প্রদীপ জানান, জামাইবাবুর (শিমুল পাল) অবস্থা আগের থেকে কিছুটা ভালো। ওনার এখনও শ্বাসকষ্ট আছে। এছাড়া কিডনিতে পাথর ছিল। 

হাসপাতালে শিমুল পালের চিকিৎসায় সন্তোষ প্রকাশ করে তিনি বলেন, জরুরি কিছু ওষুধ বাইরে থেকে কিনে দিতে হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, হাসপাতালে শিমুল পালের সঙ্গে স্ত্রী আছেন। তাদের একমাত্র ছেলেকে পিসির কাছে রেখে  এসেছেন।  জামাইবাবুর সুস্থতার জন্য সকলের নিকট দোয়া চাই।

গত ২৭ জুলাই রাতে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডের আইসিইউ বেড ছেলের জন্য ছেড়ে দেন মা কানন প্রভা পাল। 

জানা গেছে, চট্টগ্রামের সিএনবি কলোনি এলাকার ৬৫ বছর বয়সী মা কানন প্রভা পাল ও ৪৩ বছর বয়সী ছেলে শিমুল পাল করোনা আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছিলেন চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে। মায়ের অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় ২২ জুলাই কাননকে আইসিইউতে নেন চিকিৎসকরা। ছেলে ভর্তি ছিলেন সাধারণ ওয়ার্ডে। ধীরে ধীরে ছেলের অবস্থাও খারাপ হতে থাকে। ২৭ জুলাই আইসিইউর প্রয়োজন হয় ছেলে শিমুল পালের। কিন্তু চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের ১৮টি আইসিইউ বেডেই রোগী ভর্তি তখন। ছেলের জন্য আইসিইউ না পাওয়ার সংবাদ চলে যায় আইসিইউতে ভর্তি থাকা মায়ের কানে। তাতেই ছটফট করতে থাকেন কানন। নিজের হাতে লাইফ সাপোর্টের সরঞ্জাম খুলে ছেলেকে আইসিইউতে আনতে চিকিৎসকদের ইশারা দেন তিনি। 

হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসকরা বলেন, শত চেষ্টা করেও মাকে বোঝাতে পারিনি আমরা। এছাড়া পরিবারের সদস্যরাও শিমুল পালকে তার মায়ের আইসিইউতে স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত দেন। তাই হাসপাতালের চিকিৎসকরা বাধ্য হয়ে মাকে নামিয়ে ছেলে শিমুলকে আইসিইউতে নেন। 

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মা কানন প্রভাকে আইসিইউ থেকে স্থানান্তরের ঘণ্টা দুয়েকের মধ্যেই তিনি মারা যান। অন্যদিকে, এখনও জীবন-মৃত্যুর মাঝে আছেন ছেলে শিমুল পাল।

জাগরণ/এসকে