• ঢাকা
  • শনিবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৯, ২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: অক্টোবর ২১, ২০১৯, ১২:৫০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ২১, ২০১৯, ০২:১৮ পিএম

ভোলার ঘটনায় রাজধানীতে সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার

জাগরণ প্রতিবেদক
ভোলার ঘটনায় রাজধানীতে সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার
ভোলার ঘটনায় রাজধানীতে মুসল্লিদের বিক্ষোভ মিছিল- ছবি: জাগরণ

ভোলার ঘটনার প্রতিবাদে ঢাকার মোহাম্মদপুর টাউন হল এলাকায় সড়ক অবরোধ প্রত্যহার করেছে বিক্ষুব্ধ মুসল্লিরা। এসময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশ, মিছিল ও সরকারের প্রতি হুঁশিয়ারিও উচ্চারণ করা হয়। তবে পুলিশের কঠোর অবস্থানের কারণে তারা তেমন সুবিধা করতে পারেনি।

সোমবার (২১ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে টাউন হল মসজিদ আঙ্গিনায়  জড়ো হওয়া কিছু সময় নানা স্লোগান শেষে তারা অবরোধ প্রত্যাহার করেন। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, টাউন হল ইলেকট্রনিক্স মার্কেট সংলগ্ন প্রধান সড়ক আটকে দেয় বিক্ষুব্ধরা। সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে সাদা পাঞ্জাবি পায়জামা টুপি পরিহিত মুসল্লিরা দলবেঁধে জড়ো হতে থাকেন টাউন হল মসজিদ আঙিনায়। এ সময় তারা স্লোগান দিচ্ছিলেন ইসলামের শত্রুরা হুঁশিয়ার সাবধান। আরো বলছিলেন, নারায়ে তাকবীর আল্লাহু আকবারসহ ভোলার ঘটনার প্রতিবাদ সম্পর্কিত আরো স্লোগান। তারা টাউন হল মসজিদ আঙিনায় সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে বলে জানান স্থানীয় টুপি বিক্রেতা আবুল কালাম।

তিনি বলেন, সমাবেশে তারা ভোলার ঘটনায় যারা ইসলামের অবমাননা করেছে, নবী সম্পর্কে কটুক্তি করেছে, তাদেরকে অবিলম্বে বিচার করার জোর দাবি জানানো হয়। নাহলে ভবিষ্যতে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দেয়া হয়।

এরপর তারা প্রতিবাদী মিছিলসহ মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ডের দিকে চলে যায় বলে জানান স্থানীয় ইলেক্ট্রনিক্স ব্যবসায়ী রহমত আলী।

এ বিষয়ে মোহাম্মমদপুর থানার ওসি (তদন্ত) মো. আলীম দৈনিক জাগরণকে বলেন, সড়ক অবরোধের কোনো ঘটনা ঘটেনি। তারা পূর্বপরিকল্পিতভাবে এখানে সমাবেশ করে।সেটা আমরাও জানতাম। সেজন্য সেখানে উপস্থিত ছিলাম। কোনো ধরনের সমস্যা হয়নি। সমাবেশ শেষে তারা মিছিল নিয়ে মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকার তিন রাস্তার মোড়ে মোনাজাতের মাধ্যমে তাদের কর্মসূচি শেষ করে।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) রাতে বিপ্লব চন্দ্র বৈদ্য (২৫) নামে এক যুবক নিজের ফেসবুক আইডি ‘Biplob Chandra Shuvo’ হ্যাক হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে বোরহানউদ্দিন থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডি করার সময় থানায় অবস্থানকালেই বিপ্লবের নম্বরে একটি কল আসে এবং তার কাছে চাঁদা দাবি করা হয়।

বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে ওসিকে জানানো হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়। প্রযুক্তির সহায়তায় সেদিন রাতেই বিপ্লবের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক ও চাঁদা দাবির দায়ে শরীফ এবং ইমন নামে দুই যুবককে আটক করা হয়।
কিন্তু ওই আইডি থেকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতকারী কুৎসা রটনার ঘটনাকে কেন্দ্র করে সমাবেশ ডাকে ‘তৌহিদি জনতা’। সমাবেশে বাধা দিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে চারজন নিহত হন।

জেডএইচ/আরএম/এইচএম/বিএস 


 

আরও পড়ুন