• ঢাকা
  • বুধবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৮ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: অক্টোবর ১০, ২০১৯, ০৫:৩০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ১০, ২০১৯, ০৫:৩০ পিএম

নবীগঞ্জে দুই পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) সংবাদদাতা
নবীগঞ্জে দুই পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের মুক্তাহার গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ১৫ জনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্য আহতদের নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি ও প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় অভিযান চালিয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শৈলেন চন্দ্র দাশ ও ছাত্রলীগ নেতা রত্নদীপ দাশ রাজুকে আটক করে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) সকালে মুক্তাহার স্কুলমাঠে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের মুক্তাহার গ্রামের বাসিন্দা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শৈলেন চন্দ্র দাশ ও রত্নদীপ দাশ রাজুর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে একাধিকবার উভয় পক্ষের লোকজনের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে।

এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় স্কুলমাঠে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার এসআই সামসুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সংঘর্ষে আহতরা হলেন নিশী দাশ (৬৫), অনুময় দাশ (৩০), অনন্ত দাশ (৩২), বিধান দাশ (৫২), জুয়েল দাশ (২৫), কৃপাসিন্ধু দাশ, (৪৫), আশিষ দাশ (২৩), অসীম চন্দ্র (৩৪), ফুলবাসী দাশ (৫৫), রামু দাশ (২৮), উৎপল দাশ (৫০), রতীন্দ্র দাশ (২৮), মল্লিকা দাশ (৩০), সবিনয় দাশ (৩৫), কুলন্ড দাশ (৭০), অনীক দাশ (১৬), মধু দাশ (৪৫), দীনবন্ধু দাশ (৩৯), অপু দাশ (৩৫), সুমন দাশ (২৮), নারায়ণ দাশ (৩২) ও বিটু দাশ (২৮)। তাদের মধ্যে নিশী, অনুময়, অনন্ত, বিধান, জুয়েল, কৃপাসিন্ধু, সুধীন, আশিষ, অসীম, রামু, উৎপল, সুমন, নারায়ণ ও সুবিনয়কে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অপর আহতদের বিভিন্ন ক্লিনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইকবাল হোসেন বলেন, সংঘর্ষের খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে দুই পক্ষের নেতৃত্বে থাকা দুজনকে আটক করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গ্রামে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এনআই

আরও পড়ুন