• ঢাকা
  • বুধবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২০, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
প্রকাশিত: অক্টোবর ২৭, ২০২০, ১২:৩৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ২৭, ২০২০, ১২:৩৫ পিএম

কাউন্সিলর পদ হারাচ্ছেন ইরফান! 

জাগরণ ডেস্ক
কাউন্সিলর পদ হারাচ্ছেন ইরফান! 

কাউন্সিলর পদ থেকে বরখাস্ত হচ্ছেন ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিম পুত্র ইরফান সেলিম। ইরফান সেলিম ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর।

নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্টকে মারধর এবং বাড়ি তল্লাশির পর র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত কারাদণ্ড দেয়ায় ইরফান বরখাস্ত হচ্ছেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। 

এ প্রসঙ্গে স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘দক্ষিণ সিটি করপোরেশন থেকে রিপোর্ট (দণ্ডিত হওয়ার বিষয়ে) পেলে আমরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। এটা তো আইনে কাভার করে। তিনি (ইরফান সেলিম) বরখাস্ত হবেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘আইনে (স্থানীয় সরকার সিটি করপোরেশন আইন) বলা হয়েছে, কেউ সাজা প্রাপ্ত হলে তিনি বরখাস্ত হবেন।’

উল্লেখ্য, ঢাকা দক্ষিণ সিটির ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের এই কাউন্সিলর রোববার রাতে সংসদ সদস্যের স্টিকার লাগানো গাড়িতে দেহরক্ষী নিয়ে বের হয়েছিলেন ধানমণ্ডি এলাকায়। ওই গাড়িটি বেপরোয়াভাবে পেছন থেকে ধাক্কা দেয় নৌবাহিনী কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমেদ খানের মোটরসাইকেলে। স্ত্রীকে নিয়ে ব্যক্তিগত কাজে বের হওয়া ওই কর্মকর্তা ওই গাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ করেছিলেন মাত্র। এরপর আর তার রক্ষা হয়নি। গাড়ি থেকে নেমে ওই কর্মকর্তার ওপর হামলে পড়েন ইরফান ও তার দেহরক্ষীরা। কিল-ঘুষিতে তার দাঁত ভেঙে দেন। রক্তাক্ত অবস্থায় নিজের পরিচয় দিয়ে আত্মরক্ষার চেষ্টা করছিলেন তিনি। ওই অবস্থায় ঘটনাস্থল থেকে করা একটি ভিডিও ভাইরাল হলে নিন্দার ঝড় উঠে সর্বত্র।

পরে সোমবার(২৬ অক্টোবর) সকালে ধানমন্ডি থানায় মামলা করেন ওয়াসিফ। এরপর শুরু হয় পুলিশ ও র‍্যাবের তৎপরতা। আটক করা হয় ইরফানকে। বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় অস্ত্র, মাদক, দুরবিন, ওয়াকিটকি, ভেরি হাই ফ্রিকোয়েন্সি সেটসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র। অভিযানকালে র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত মাদক রাখার দায়ে ইরফান সেলিমকে এক বছর কারাদণ্ড দেন। আর অবৈধ ওয়াকিটকি রাখার দায়ে দেন ছয় মাসের কারাদণ্ড। দুই মামলায় মোট দেড় বছর সাজা দেওয়া হয়েছে তার।

জাগরণ/এমআর