• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬
Bongosoft Ltd.
প্রকাশিত: মে ২৫, ২০১৯, ০৮:৩৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ২৫, ২০১৯, ০৮:৩৭ পিএম

ঢাবিতে প্রাক-বাজেট সেমিনার

শিক্ষা ও গবেষণা খাতে পৃথক বরাদ্দের দাবি 

ঢাবি প্রতিনিধি
শিক্ষা ও গবেষণা খাতে পৃথক বরাদ্দের দাবি 
‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে উচ্চশিক্ষায় বাজেট’ শীর্ষক  প্রাক বাজেট সেমিনারে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানসহ অন্যরা -ছবি : জাগরণ

আসন্ন বাজেটে শিক্ষা ও গবেষণা খাতে পৃথক পৃথক বরাদ্দ দেয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন বিশিষ্টজনরা।

শনিবার (২৫ মে) বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধ্যাপক মুজাফফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে সেন্টার অন বাজেট অ্যান্ড পলিসির উদ্যোগে ‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে উচ্চশিক্ষায় বাজেট’ শীর্ষক  প্রাক বাজেট সেমিনারে বক্তারা এ মত দেন।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, উচ্চশিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিত করতে টেকসই পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) ১৭টির মধ্যে ৭টি লক্ষ্য অর্জন প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে শিক্ষাখাতের ওপর নির্ভরশীল। আর উচ্চশিক্ষায় সাফল্য অর্জন করা গেলে দেশের দারিদ্র বিমোচনও সম্ভব হবে। এ জন্য আসন্ন বাজেটে শিক্ষা ও গবেষণা খাতে পৃথক পৃথক বরাদ্দ দেয়া প্রয়োজন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ ও সেন্টার অন বাজেট অ্যান্ড পলিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কামাল উদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। সেমিনারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাবির উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের অনারারি অধ্যাপক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান এবং সেন্টার অন বাজেট অ্যান্ড পলিসির পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবু ইউসুফ।

এর আগে স্বাগত বক্তব্য দেন ঢাবির উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. নিয়াজ আহমেদ খান। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান সেমিনারের উদ্বোধন করেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, জাতীয় বাজেট প্রণয়ন ও দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে নাগরিকদের গঠনমূলক পরামর্শ বিবেচনা করা হবে। তিনি আধুনিক ও উন্নত বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালনের জন্য তরুণ প্রজন্মের প্রতি আহ্বান জানান।

উদ্বোধনী বক্তব্যে উপাচার্য সর্বস্তরে শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নের লক্ষ্যে উচ্চশিক্ষা খাতে বাজেট বরাদ্দ বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করেন। 

মূল প্রবন্ধে জাতীয় বাজেটে শিক্ষা ও গবেষণা খাতে পৃথক বরাদ্দের আহ্বান জানান হয়।

সেমিনারে প্রবন্ধকারগণ সমাজের চাহিদা অনুযায়ী গ্রাজুয়েট তৈরি, কারিগরি শিক্ষার উন্নয়ন, দক্ষ মানব সম্পদ সৃষ্টি, শিক্ষার্থীদের উদ্যোক্তা হিসেবে প্রস্তুত করা, বাজেটের সঠিক বাস্তবায়ন এবং অপচয় রোধে এপ্রিল-মার্চকে অর্থবছর নির্ধারণ করার প্রস্তাব দেন। 

এমআইআর/এসএমএম

Space for Advertisement