• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: অক্টোবর ১৫, ২০১৯, ১১:৫৬ এএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ১৫, ২০১৯, ১২:২০ পিএম

১৫ অক্টোবর চিকিৎসার জন্য ইতালিতে নেয়া হচ্ছে তাফিদাকে  

 লন্ডন সংবাদদাতা
১৫ অক্টোবর চিকিৎসার জন্য ইতালিতে নেয়া হচ্ছে তাফিদাকে  
তাফিদা রাকিব

নানা জটিলতা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) ইতালিতে যাচ্ছে তাফিদা রাকিব। তাকে ইতালির জেনোয়ার গ্যাসোলিন চিলড্রেন হাসপাতালে নেয়া হবে। সঙ্গে থাকবেন মা-বাবা। 

সোমবার (১৪ অক্টোবর) তাফিদার মা সেলিনা হোসেন দৈনিক জাগরণকে এ কথা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মঙ্গলবার সকালে তাফিদাকে ইতালির জেনোয়ার গ্যাসোলিন চিলড্রেন হাসপাতালে নিতে এয়ার এম্বুলেন্স আসবে।

এদিকে, তাফিদার ইতালি যাওয়া নিয়ে লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব কার্যালয়ে সোমবার বিকালে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে তাফিদার মা সেলিনা রাকিব জানান, তাফিদা ইতালিতে পৌঁছালে তাকে স্বাগত জানাতে পারেন ইতালির প্রধানমন্ত্রী গিউসেপ্পে কোন্ত। এ সময় তাফিদার বাবা মোহাম্মদ রাকিবও সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে আগতরা তাফিদার চিকিৎসার জন্য সবার কাছে অর্থ সহযোগিতা কামনা করেন। তাফিদার চিকিৎসার জন্যে ৪০০ হাজার পাউন্ডের বেশি অর্থের প্রয়োজন। 

লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জুবায়ের এর সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন -চ্যানেল এস এর প্রতিষ্ঠাতা মাহি ফেরদৌস চৌধুরী জলিল, বিসিসিআই এর প্রেসিডেন্ট বজলুর রশীদ, গ্রেটার সিলেট এসোসিয়েশন এর সভাপতি আতাউর রহমান, সাংবাদিক মুহিব চৌধুরী, সাংবাদিক নজরুল ইসলাম বাসনসহ আরও অনেকে।

তাফিদার গ্রামের বাড়ি সিলেট জেলার বালাগঞ্জ উপজেলায়। তার পিতা মোহাম্মদ রাকিব একজন কন্সট্রাকশন কনসালটেন্ট এবং মাতা সেলিনা বেগম একজন আইনজীবী।

সম্পূর্ণ সুস্থ এবং সুস্বাস্থ্যের অধিকারী ৫ বছর বয়সের তাফিদা রাকিব চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি (শনিবার) সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে মাথায় ব্যথা অনুভব করে। এর একটু পরই তাফিদা জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। তাকে স্থানীয় নিউ হ্যাম হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে ডাক্তাররা পরীক্ষা করে বলেন, তাফিদার ব্রেইন মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এরপর তার মাথায় অপারেশন করা হয়। অপারেশনের পর থেকে এখন পর্যন্ত সে কোমায় রয়েছে। বর্তমানে তাফিদা রয়েল লন্ডন হাসপাতালে নিবিড় পর্যবেক্ষণে। তার আর সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা নেই দাবি করে সেখানকার চিকিৎসকরা লাইফ সাপোর্ট খুলে নেয়ার অনুমতি আদায়ের জন্যে আদালতে মামলা করেন। এদিকে তাফিদার মা সেলিনা বেগমও তার মেয়েকে ইতালির হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার অনুমতির জন্যে আদালতের শরণাপন্ন হন। ১৩ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) আদালতে যুক্তিতর্ক শেষ হয়। অবশেষে ৩ অক্টোবর ব্রিটেনের হাইকোর্ট তাফিদাকে ইতালিতে নিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেয়।
 

একেএস

আরও পড়ুন