• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ০২ জুলাই, ২০২০, ১৮ আষাঢ় ১৪২৭
প্রকাশিত: জুন ৬, ২০২০, ০২:৩৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ৬, ২০২০, ০৬:৩৫ পিএম

কোভিড-১৯

আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২,৬৩৫

এসএম মুন্না
আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২,৬৩৫
অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা

আক্রান্তের ৯১তম দিন

.....

গত ২৪ ঘণ্টা দেশে মারা গেছেন আরও ৩৫ জন। এর মধ্যে ২৮ জন পুরুষ ও ৭ জন নারী। এ নিয়ে মোট প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে গিয়ে দাঁড়াল ৮৪৬ জনে। 

জেলাভিত্তিক বিশ্লেষণে ঢাকা বিভাগে ২০ জন, চট্টগ্রামে ৮, সিলেটের ২ এবং ময়মনসিংহে ১ জন। এর মধ্যে হাসপাতালে মারা গেছেন ২৫ জন, বাড়িতে ৯ এবং মৃত অবস্থায় হাসপাতালে এসেছেন ১ জন।

বয়স ভিত্তিক বিশ্লেষণে ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ১ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৯ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৫ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৩ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ২ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ৩ জন এবং ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে ২ জন। 

গত ২৪ ঘণ্টায় (শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) দেশে নতুন করে ২ হাজার ৬৩৫ জনের দেহে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট শনাক্ত হলেন ৬৩ হাজার ২৬ জন। 

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫২১ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ১৩ হাজার ৩২৫ জন।

শনিবার (৬ জুন) দুপুরে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য তুলে ধরেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে মোট ৫০টি ল্যাব থেকে গত ২৪ ঘন্টায় মোট ১২ হাজার ৯০৯ টি নমুনা সংগ্রহ হয়েছে। এখান থেকে ১২ হাজার ৪৮৬ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৮৫১ টি।

নমুনা বিবেচনায় গত ২৪ ঘন্টায় শনাক্তের হার ২১ দশমিক ১০ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ দশমিক ৪ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৪ শতাংশ।

মৃত্যু বিবেচনায় পুরুষের হার ৭৭ দশমিক ০৬ শতাংশ এবং নারী ২২.০৯ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনের নেয়া হয়েছে ৩১৪ জনকে। বর্তমানে আইসোলেশনের আছেন ৭ হাজার ১৬২ জন।

আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৯৮ জন। এ পর্যন্ত মোট ছাড় পেয়েছেন ৩ হাজার ২৮ জন।

যারা কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড় পেয়েছেন তারা সম্পূর্ণ সুস্থ এবং স্বাভাবিক। তারা স্বাভাবিক চলাফেরা করতে পারবেন। তবে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরামর্শ থাকবে, তারা যেন এখনও নিজ ঘরে থাকেন।

শুক্রবার (৫ জুন) শনাক্ত হয় ২ হাজার ৮২৮ ও মারা যায় ৩০ জন। 

গত ২ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশে করোনাভাইরাস শনাক্তের পরীক্ষা শুরু করে। ৮ মার্চ দেশে প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। ১৮ মার্চ প্রথম কোনও করোনা রোগী মারা যায়।

দেশে গত ২৮ এপ্রিল করোনা রোগী শনাক্ত হয় ৫৪৯ জন। এর পর ধারবাহিকভাবে বাড়তে থাকেশনাক্তের সংখ্যা । চলতি মাসের ১ জুন ২,৩৮১, ২ জুন ২,৯১১, ৩ জুন ২৬৯৫, ৪ জুন ২৪২৩ ও ৫ জুন ২,৮২৮  জন শনাক্ত হয়।

দিন দিন করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ায় নড়েচড়ে বসে সরকার। ভাইরাসটি যেন ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সব সরকারি-বেসরকারি অফিস। কয়েক দফা বাড়ানো হয় সেই ছুটি। এ ছুটি আরেক দফা বাড়িয়ে ৩০ মে পর্যন্ত করা হয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে আরও ৪ হাজার ৯০১ জনের প্রাণ কেড়েছে করোনাভাইরাস। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৩০ হাজারের বেশি। এ নিয়ে বিশ্বে মোট মৃত্যু ৩ লাখ ৯৮ হাজার ছাড়ালো। মোট আক্রান্ত ছাড়িয়েছে ৬৮ লাখ ২৬ হাজার।

শুক্রবার (৫ জুন) সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছে ব্রাজিলে মারা গেছে ১০০৮ জন। যুক্তরাষ্ট্রে ৯৭০ জন, যুক্তরাজ্যে ৩৫৭ জন, পেরুতে ১৩১ জন মারা গেছেন।

জনসমাগমে নির্দেশনা মেনে তিন স্তরের কাপড়ের মাস্ক পড়লে সম্ভ্যাব্য ভাইরাস কণার প্রবেশে বাধার সৃষ্টি করবে। ফলে সংক্রমণের ঝুঁকি কমবে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থ্যা।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা এক লাখ ১০ হাজার ছাড়িয়েছে।

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) বিস্তার বাড়ায় জেদ্দায় নতুন করে লকডাউন জারি করেছে সৌদি সরকার।

কেনিয়ায় সংক্রমণ রোধে জারি করা কারফিউ না মানায় ১৫ জনকে গুলি করে হত্যা করেছে পুলিশ। আহত হয়েছে ৩১ জন।

সাউথ আফ্রিকায় ভাইরাসের বিস্তার বাড়ায় শঙ্কা জানিয়েছে দেশটির প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা। দেশটির কেপটাউন প্রদেশ ঝুঁকিতে আছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আয়ারল্যান্ডে সংক্রমণ কমায় নিষেধাজ্ঞা শিথিলের কথা জানিয়েছে দেশটির প্রধানমন্ত্রী।

দুই মাসের কঠোর লকডাউনের পর শুক্রবার (৫ জুন) সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করার অনুমতি দিয়েছে ইন্দোনেশিয়া।

রাশিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ৪ লাখ ছাড়িয়েছে।

ভারতে একদিনে ২৮৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন আক্রান্ত ৯৪৭১ জন।

এসএমএম

আরও পড়ুন