• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭
প্রকাশিত: জুন ২৯, ২০২০, ১০:০৮ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুন ২৯, ২০২০, ১০:০৮ পিএম

সীমান্ত দ্বন্দ্ব নিরসনে ৩য় দফা বৈঠকে বসছে ভারত-চীন

আন্তর্জতিক ডেস্ক
সীমান্ত দ্বন্দ্ব নিরসনে ৩য় দফা বৈঠকে বসছে ভারত-চীন
প্রতীকী ছবি

লাদাখের সীমান্তবর্তী অঞ্চলে সৃষ্ট দ্বন্দ্ব নিরসনে তৃতীয় দফা বৈঠকে বসতে যাচ্ছে নয়াদিল্লি-বেজিং।

সোমবার (২৯ জুন) আনন্দবাজারসহ বিভিন্ন ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের তথ্য মতে, চলমান অস্থিতিশীলতা দূর করার লক্ষ্যে মঙ্গলবার (৩ জুন) থার্ড কর্প কমান্ডার স্তরে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এই বৈঠক। এবারের বৈঠকটি হবে ভারত সীমান্তের চুশুলে। সূত্রের খবর, এই বৈঠকে দুই তরফের সেনার ডিসএনগেজমেন্ট ইস্যু নিয়েই মূলত আলোচনা চলবে। সমঝোতার লক্ষ্যে পূর্ববর্তী দুটি বৈঠকের ব্যর্থতার পর তৃতীয় দফা বৈঠকের মাধ্যমে ভারত-চীন শান্তিপূর্ণ সমঝোতায় পৌঁছতে পারে কিনা তাই দেখার অপেক্ষায় রয়েছে গোটা বিশ্ব।

এর আগে দেশটির কর্প কমান্ডার স্তরের বৈঠক হয় ৬ই জুন ও ২২শে জুন। ১৪ কর্পসের কমান্ডার, লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরিন্দর সিং ভারতের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন। ২২শে জুন ১১ ঘণ্টা ধরে ম্যারাথন বৈঠক চলে। আর তারপরই সমাধান সূত্র কিছুটা সামনে আসে।

দ্বিতীয় বৈঠকে দুই পক্ষই লাদাখ সীমান্ত থেকে সেনা সরানোর ক্ষেত্রে রাজি হয়। দুই দেশের মধ্যে ইতিবাচক কথাবার্তা হয় এদিন। দুই দেশের আর্মি অফিসার স্তরের বৈঠকও হয়। লাদাখের বিভিন্ন জায়গার পরিস্থিতি নিয়েও এদিন আলোচনা হয়। ইস্টার্ন লাদাখের পরিস্থিতিতে বিশেষ জোর দেওয়া হয়। এ ব্যাপারে আগামীতেও আলোচনা হবে বলে জানা যায়। দুই দেশের লেফট্যানেন্ট জেনারেল স্তরের মধ্যে বৈঠক হওয়ার পর কীভাবে ক্রমশ সেনা সরানো হয়, সেদিকেই নজর ছিল।

এর আগে ১৫ই জুনের পর চীন জানিয়ে ছিল আর কোন সংঘর্ষ তারা ভারতের সঙ্গে চায় না। এই বৈঠকে চীনের কাছে কয়েকটি দাবি রাখে ভারত। নয়াদিল্লি চেয়েছিল ৪ঠা মের আগে গালওয়ান ভ্যালিতে দুই দেশের সেনার যে অবস্থান ছিল, তা ফের ফিরে আসুক। ভারতের এই বক্তব্য একেবারেই সহমত ছিল না বেজিং। কোনওভাবেই নিজেদের পুরোনো অবস্থানে ফেরত যেতে রাজি হয়নি চিন সেনা।

অন্যদিকে ভারতও নিজেদের দাবিতে অনড় ছিল। পরে জানা যায় গালওয়ান ভ্যালিতে অবশেষে কূটনৈতিক জয় হয়েছে ভারতের। পূর্ব লাদাখ সেক্টরে পিছু হটেছে চীন সেনা। ২২ শে জুনের বৈঠক ফলপ্রসূ হওয়ার পরেই এই সিদ্ধান্ত নেয় বেজিং। সরিয়ে নেওয়া হয় চীন সেনা জওয়ানদের ও সাঁজোয়া গাড়িগুলিকে।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, আলোচনার পরবর্তীতে ফের সীমান্তে অনুপ্রবেশ ঘটায় চীনা সেনারা। জানা যায়, ভিন্ন পথ ধরে লাদাখের আরেক পাশে অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালাচ্ছে চীন সেনা। উপগ্রহ চিত্রে দেখা যায় দৌলত বেগ ওলডি বা ডিবিও ও ডেপসাং সেক্টরে চীনা সেনার গতিবিধি নজরে এসেছে। এ নিয়ে দু'দেশের মাঝে আবার উত্তেজনার পারদ চড়তে থাকে। 

তবে শেষ পর্যন্ত রাষ্ট্রদ্বয় তৃতীয় দফা বৈঠকের ঘোষণা দিয়ে সম্ভাব্য সংঘাত এড়িয়ে শান্তিপূর্ণভাবে সমঝোতার পথে পা বাড়াতে যাচ্ছে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। আঞ্চলিক শান্তি বজায় রাখার পাশাপাশি চলমান করোনাভাইরাস মহামারিতে সৃষ্ট বৈশ্বিক বিপর্যয় মোকাবিলায় রাষ্ট্র দুটির মাঝে দ্বন্দ্ব নিরসনের প্রতীক্ষায় রয়েছে আন্তর্জাতিক মহল।

এসকে

সূত্র: আনন্দবাজার