• ঢাকা
  • বুধবার, ০৫ আগস্ট, ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭
প্রকাশিত: জুলাই ১২, ২০২০, ০১:৫৪ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জুলাই ১২, ২০২০, ০১:৫৫ পিএম

অবশেষে ‘কাপুরুষ’ ডোনাল্ড ট্রাম্প

এস এম সাব্বির খান
অবশেষে ‘কাপুরুষ’ ডোনাল্ড ট্রাম্প
মাস্ক মুখে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প- রয়টার্স

কয়েকদিন আগেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভাষ্য ছিল, মাস্ক পড়া কাপুরুষের কাজ। সে সময়টা চট কর পাল্টে গেল দ্বিতীয় পর্যায়ে গোটা যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে হু হু করে বাড়তে থাকা করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রলয়ে। এবার সেই কাপুরুষোচিত কাজটি করলেন ট্রাম্প নিজেই। মুখে হোয়াইট হাউজের লোগো সাঁটা মাস্ক তুলে প্রকাশ্যে বেরিয়ে এলেন। বললেন, 'মাস্ক পড়া খুব ভালো একটা ব্যাপার।'

করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হওয়ার পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এই প্রথমবারের মতো জনসম্মুখে মুখে মাস্ক পরলেন। এদিন ওয়াশিংটনের বাইরে ওয়াল্টার রিড সামরিক হাসপাতাল পরিদর্শন করতে গিয়েছিলেন ট্রাম্প, যেখানে তিনি আহত সৈনিক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

হোয়াইট হাউজ থেকে মাস্ক বের হওয়ার পথে উপস্থিত গণমাধ্যমের উদ্দেশে মাস্ক ব্যবহারের ব্যাপারে তার মন্তব্য, 'আমি বরাবরই মাস্কের বিরুদ্ধে, কিন্তু আমার মতে, সেটার জন্য একটা নির্দিষ্ট সময় এবং জায়গা রয়েছে।'

এর আগে তিনি বলেছিলেন, তিনি মাস্ক পরবেন না। ওটা কাপুরুষের কাজ মাস্ক পরার জন্য ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনকে নিয়ে তিনি ব্যাঙ্গও করেছেন।

তবে শনিবার তিনি বলেছেন, 'আমি মনে করি, যখন আপনি হাসপাতালে থাকবেন, বিশেষ করে এরকম নির্দিষ্ট অংশে, যখন আপনার অনেক সৈনিক এবং মানুষজনের সঙ্গে কথা বলতে হবে, যাদের কেউ কেউ মাত্রই অপারেশন টেবিল থেকে ফিরেছেন, তখন মাস্ক পরা খুব ভালো একটা ব্যাপার।'

এর  আগে গত সপ্তাহে ফক্স বিজনেস নেটওয়ার্কের সঙ্গে সাক্ষাৎকারের সময়  ট্রাম্প বলেছিলেন, 'আমি পুরোপুরি মাস্কের পক্ষে।'

তিনি আরও বলেন যে, মাস্ক পরলেও তাকে দেখতে অনেকটা 'লোন রেঞ্জারের' মতো লাগে। লোন রেঞ্জার হচ্ছেন আমেরিকান কল্পকাহিনীর একজন নায়ক, যিনি তার আদিবাসী আমেরিকান বন্ধু টোনটোর সঙ্গে মিলে পশ্চিমা আমেরিকায় অপরাধীদের বিরুদ্ধে লড়াই করতেন।

তবে গত এপ্রিল মাসে যখন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (সিডিসি) করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করার জন্য সবার জন্য জনসম্মুখে মাস্ক পরার সুপারিশ করে, ট্রাম্প সাংবাদিকদের বলেছিলেন, তিনি সেটা করবেন না।

'আমি এটা করবো বলে মনে হয় না,' তিনি তখন বলেছিলেন। ''মুখে মাস্ক পরে আমি প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী, স্বৈরশাসক, রাজা, রানীদের স্বাগত জানাচ্ছি- এমনটা দেখা যাবে বলে আমি মনে করি না।'

গণমাধ্যমে প্রকাশিত কিছু খবরে বলা হয়েছে, জনসম্মুখে মাস্ক পরার জন্য বারবার তাকে অনুরোধ করেছেন তার সহকারীরা। কিন্তু তিনি তা কিছুতেই আমলে নিতে চাননি। এক পর্যায়ে তার করোনা সংক্রমণের গুঞ্জনও ওঠে। 

জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্য অনুযায়ী, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত এক লাখ ৩৫ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

সর্বশেষ লুইজিয়ানা রাজ্যে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

তথ্যসূত্র সহায়ক : বিবিসি, রয়টার্স