• ঢাকা
  • বুধবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২ ফাল্গুন ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৯, ২০২১, ০৯:৩২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ১৯, ২০২১, ০৯:৩৯ পিএম

আরব বসন্তের সুফল না পেয়ে বিক্ষুব্ধ তিউনিসিয়া

আরব বসন্তের সুফল না পেয়ে বিক্ষুব্ধ তিউনিসিয়া

১০ বছর আগে একজন ফল বিক্রেতাকে অপমান করেছিলেন এক পুলিশ সদস্য। আত্মগ্লানিতে শরীরে পেট্রোল ঢেলে আত্মহত্যা করে পুলিশের নির্যাতনের প্রতিবাদ জানান ফল বিক্রেতা। সেই প্রতিবাদের আগুনে ১০ বছর আগেই গণতন্ত্রের দাবিতে এসেছিল আরব বসন্ত, যা ছড়িয়ে গিয়েছিলো সারা আরবে।

আরব বসন্তের ১০ম বছরেই পুলিশের নির্যাতনের শিকার হয় তিউনিসিয়ার এক মেষপালক। সম্প্রতি সামাজিক মাধ্যমে এই ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে উত্তেজনা এবং সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে পুলিশ এবং বিক্ষুব্ধ জনতা। শুধু রোববারেই ৬৩২ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ ঘটনায় দেশটির গণতন্ত্রের প্রাপ্তি নিয়ে প্রশ্ন তোলে জনতা। রাজধানী তিউনিসসহ বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে দেশের দশটি প্রধান শহরে। 

বিক্ষোভের সময় ভাংচুর করা হয়েছে বিভিন্ন দোকানপাট। অর্থনৈতিকভাবে দূর্বল দেশটির ১৫ থেকে ২০ বছর বয়সী জনগোষ্ঠীকেও লুটপাট করতে দেখা গেছে। মূলত একারণেই ব্যাপক ধড়পাকড় চালিয়েছে পুলিশ। 

স্থানীয় সময় সোমবার তিউনিসের আত-তাদামিন এলাকায় বিক্ষোভকারীরা রাস্তা অবরোধ ও পুলিশকে পাথর নিক্ষেপ করে। প্রতিরোধ হিসেবে তাদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ জলকামান ও টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করে। এ ছাড়া রাজধানীর মানিহলা এলাকাতেও পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী হিশাম মাশিশির ক্ষমতায় থাকার জন্য বিক্ষোভটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। 
২০১১ সাল থেকে এমন অনেক প্রতিবাদের মুখোমুখি হয়েছে তিউনিস সরকার। শুক্রবার সিলিয়ানা ও অন্যান্য শহরে নতুন করে বিক্ষোভ শুরু হয়। তবে অন্যগুলোর মতো এই প্রতিবাদও  হারিয়ে যাবে কি না সেটিই বড় প্রশ্ন।