• ঢাকা
  • সোমবার, ২৩ মে, ২০২২, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৯, ২০২১, ১২:৫৬ এএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ৮, ২০২১, ০৬:৫৬ পিএম

ওমিক্রনের বিরুদ্ধেও কাজ করবে ফাইজারের টিকা

ওমিক্রনের বিরুদ্ধেও কাজ করবে ফাইজারের টিকা

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) যেসব টিকা বর্তমানে প্রচলিত আছে, এগুলো ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে সংক্রমিতদের গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়া থেকেও রক্ষা করতে পারবে বলে জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) একজন কর্মকর্তা।

এর আগে প্রাথমিক ল্যাবরেটরি পরীক্ষায় আভাস পাওয়া গিয়েছিল যে, দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম চিহ্নিত এই অমিক্রন নামের নতুন ধরনটি ফাইজারের টিকাকে আংশিকভাবে এড়িয়ে যেতে পারে।

গবেষকরা বলেন, টিকা থেকে সৃষ্ট অ্যান্টিবডি ওমিক্রনকে যতটা নিষ্ক্রিয় করতে পারে, তার মাত্রায় ‘খুব বড় পতন’ দেখা গেছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি।

কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরুরি পরিস্থিতি সম্পর্কিত পরিচালক ড. মাইক রায়ান বলেছেন, টিকাকে ফাঁকি দেবার ক্ষেত্রে করোনার অন্য ভ্যারিয়েন্টগুলোর চেয়ে ওমিক্রন বেশি দক্ষ- এমন কোনও ইঙ্গিত দেখা যাচ্ছে না।

ড. রায়ান বলেন, করোনাভাইরাসে গুরুতর অসুস্থতা ও হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ঠেকানোর ক্ষেত্রে ‘আমাদের হাতে অত্যন্ত কার্যকর টিকা আছে, যা এখন পর্যন্ত সব ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে’।

তিনি বলেন, ওমিক্রনের ক্ষেত্রেও যে তাই হবে না এমন মনে করার কোনো কারণ নেই। ড. রায়ান বলেন, প্রাথমিক উপাত্তে আভাস পাওয়া যাচ্ছে যে, ডেল্টা বা অন্যান্য ধরনের তুলনায় ওমিক্রন যে মানুষকে বেশি অসুস্থ করে তা নয়। বরং অসুস্থতা যে অপেক্ষাকৃত কম সেই ইঙ্গিতই মিলছে বলে জানান তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকার এই নতুন জরিপটি এখনো অন্য বিজ্ঞানীদের দ্বারা যাচাই করানো হয়নি। তবে এতে দেখা গেছে যে করোনার মূল ধরনটির বিরুদ্ধে ফাইজার-বায়োএনটেক টিকার ফলে যে পরিমাণ অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছিল, অমিক্রনের ক্ষেত্রে তা ৪০ গুণ পর্যন্ত কম হতে পারে।

এ গবেষণার নেতৃত্বদানকারী আফ্রিকা হেলথ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের ভাইরোলজিস্ট অধ্যপক এ্যালেক্স সিগাল বলেন, টিকাকে ফাঁকি দেবার যে ক্ষমতা ওমিক্রনের আছে তা ‘অসম্পূর্ণ’।