• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৩ মে, ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮
প্রকাশিত: এপ্রিল ২১, ২০২১, ০৩:০৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ২২, ২০২১, ০২:০৪ এএম

সাহরিতে যেসব খাবার এড়িয়ে চলবেন

সাহরিতে যেসব খাবার এড়িয়ে চলবেন

তীব্র দাবদাহে বিপর্যস্ত জনজীবন। এই গরমে রোজা রাখতে বেশ কষ্ট হতে পারে। তবে আমাদের কিছু ভুল ধারণার জন্য রোজা রাখার কষ্ট আরও বেড়ে যায়। যেমন, আমরা মনে করি অধিক পরিমাণ খাবার গ্রহণ করলে বা ভারী খাবার খেলে হয়তো সারা দিন ক্ষুধা লাগবে না। কিন্তু ধারণাটি সম্পূর্ণ ভুল। 

সাহরিতে অতিরিক্ত খাবার খাওয়া ও ভুল খাবার গ্রহণ করলে শরীরে বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে পারে। এর মধ্যে গ্যাস্ট্রিক, পেট ফাঁপা, বদহজম, ক্লান্তি, পিপাসার্ত হওয়া অন্যতম। সাহরিতে কোন খাবারগুলো এড়িয়ে চলবেন, তা জানাব আজকের আয়োজনে। 

ভারী খাবার

সাহরিতে কখনো ভারী খাবার খাবেন না। আমরা অনেক সময় সাহরিতে পোলাও, বিরিয়ানি, ভুনা খিচুড়ি খেয়ে থাকি। খেয়ে থাকলেও যেন সেটা পরিমাণমতো হয়। ভরপেট কখনো এ ধরনের খাবার বা ভাত বা রুটি খেতে যাবেন না। এতে পাকস্থলীর ওপর চাপ পড়বে। 

তেল ও মসলাদার খাবার

সাহরিতে অতিরিক্ত মসলা দিয়ে তৈরি খাবার যেমন ভুনা মাংস, অতিরিক্ত তেল ও মসলা দিয়ে রান্না করা মাছ, রোল, সমুচা, যেকেনো ফ্রাই জাতীয় খাবার পরিহার করুন। এ-জাতীয় খাবার খাওয়ার পর প্রচণ্ড পিপাসার উদ্রেক হতে পারে। পেট দীর্ঘ সময় খালি থাকার পর তেল-চর্বিযুক্ত খাবার হজম হতে চায় না।

সাদা শত্রু

সাদা চিনিকে অনেকেই এক নম্বর শত্রু হিসেবে গণ্য করে থাকেন। কারণ মেদবহুলের জন্য চিনিকে সবচেয়ে বেশি দায়ী বলে মনে করে আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন। চিনি প্যানক্রিয়েস, লিভার এবং পরিপাকতন্ত্রের ওপর চাপ সৃষ্টি করে।

অতিরিক্ত পানি পান করা

রোজার সময় ইফতার থেকে সাহরি পর্যন্ত অল্প অল্প করে ৭-৮ গ্লাস পানি পান করুন। তবে একসঙ্গে অতিরিক্ত পানি পান করবেন না। সাহরি খাওয়ার শেষে অনেকেই ২-৩ গ্লাস পানি একসঙ্গে খেয়ে থাকেন। এটা মোটেও ঠিক নয়। বরং খাওয়ার আগে পানি খেয়ে নিন। এরপর খাওয়া শেষে আবারও পানি খেতে হবে। তবে অতিরিক্ত পানি খাওয়া যাবে না। সাহরিতে অনেক বেশি পানি পান করলে হজমজনিত সমস্যা হতে পারে।

প্রক্রিয়াজাত ফুড 

এ ধরনের খাবার রোজার সময় এড়িয়ে চলাই বাঞ্ছনীয়। প্রক্রিয়াজাত মাংস স্বাস্থ্যের জন্য সবচেয়ে বেশি ক্ষতিকর। সসেজ, নাগেটস, প্যাটি ইত্যাদি সবই প্রক্রিয়াজাত মাংস। এসব মাংসে থাকে উচ্চমাত্রার নাইট্রেট ও সোডিয়াম। এই নাইট্রেট হজম প্রক্রিয়ার একপর্যায়ে নাইট্রোস অ্যামাইনে পরিণত হয়, যা ক্যানসার সৃষ্টিকারী একটি ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ হিসেবে পরিচিত।

ক্যাফেইনজাতীয় খাবার

ইফতারের পর ঘুমানোর আগ পর্যন্ত শরীরে সারা দিনের পানিস্বল্পতা এবং শরীরকে দূষণমুক্ত করার জন্য প্রচুর পরিমাণ পানি গ্রহণ করা উত্তম। সাহরির পর অনেকই চা পান করে থাকেন। চা অনেক উপকারী এ কথাও প্রায় সবার জানা। কিন্তু গবেষকরা সাহরির পর চা পান থেকে বিরত থাকতে বলেছেন একটি ভিন্ন কারণে। গবেষকরা বলছেন চায়ের মধ্যে রয়েছে ক্যাফেইন। এই ক্যাফেইন প্রস্রাবের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। ফলে শরীরে খনিজ লবণ ও পানিস্বল্পতা দেখা দেয়।