• ঢাকা
  • শনিবার, ১৫ মে, ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
প্রকাশিত: এপ্রিল ২০, ২০২১, ০২:৪৬ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : এপ্রিল ২০, ২০২১, ০২:৪৬ পিএম

পুলিশ-চিকিৎসক বাদানুবাদ

‘পাল্টাপাল্টি বিবৃতি দেওয়া সমীচীন হয়নি’

‘পাল্টাপাল্টি বিবৃতি দেওয়া সমীচীন হয়নি’

লকডাউনে সড়কে ‘মুভমেন্ট পাস’ নিয়ে চিকিৎসক, ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের বাগবিতণ্ডার ঘটনায় দুই পেশাজীবী সংগঠন পাল্টাপাল্টি বিবৃতি দেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট।

আদালত বলেছেন, ওই ঘটনায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পাল্টাপাল্টি বিবৃতি দেয়া সমীচীন হয়নি। তাদের এমন আচরণ অনাকাঙ্ক্ষিত। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাছে এমন আচরণ কাম্য নয়।

মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চ এমন মন্তব্য করেন।

এর আগে রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডে চিকিৎসক, পুলিশ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উত্তেজনাপূর্ণ বাদানুবাদ ও অসৌজন্যমূলক আচরণের ঘটনায় পালটাপালটি প্রতিবাদ জানিয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন। 

অন্যদিকে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক ও নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, চেকপোস্ট চলাকালে চিকিৎসককে তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য পরিচয়পত্র দেখাতে বললে তিনি ন্যক্কারজনকভাবে ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। তিনি শুধু ওই পুলিশ সদস্যদের অপমান করেননি গোটা পুলিশ বাহিনীকে কটাক্ষ ও হেয়প্রতিপন্ন করেছেন।  বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন এ ঘটনার তীব্র নিন্দাসহ প্রতিবাদ জানাচ্ছে ও একই সঙ্গে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছে।

এদিকে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের হাইকোর্ট বেঞ্চে অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী আকন্দ সোমবার বাকবিতণ্ডার ওই ঘটনা নজরে আনেন। 

আরও পড়ুন