• ঢাকা
  • সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৯, ০৬:১০ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৯, ০৬:১০ পিএম

আশুলিয়ায় পৃথক ঘটনায় দুই তরুণী ধর্ষিত

সাভার (ঢাকা) সংবাদদাতা
আশুলিয়ায় পৃথক ঘটনায় দুই তরুণী ধর্ষিত
পোশাকশ্রমিককে ধর্ষণের ঘটনায় পুলিশের হাতে আটক দুই ধর্ষক  -  ছবি : জাগরণ

সাভারের আশুলিয়ায় এক পোশাকশ্রমিককে দল বেঁধে ধর্ষণ ও অপর এক তরুণীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে । পৃথক ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত ৩ ব্যক্তিকে আটক করেছে আশুলিয়া থানার পুলিশ।

মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ফজিকুল ইসলাম দৈনিক জাগরণকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

পোশাকশ্রমিককে ধর্ষণের ঘটনায় আটককৃতরা হলো শেরপুর জেলার সদর থানার সাতমাড়িয়া গ্রামের মৃত মুরাদ হোসেনের ছেলে কাইয়ূম ও পাবনা জেলার ঈশ্বরদী থানার মুসোরিয়া গ্রামের নুর মোহাম্মদের ছেলে তুহিন আলম। অপর তরুণীকে ধর্ষণের ঘটনায়  ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা থানার গানপুর গ্রামের আলী হোসেনের ছেলে সারফিনকে আটক করা হয়। তারা আশুলিয়ার গাজীরচট এলাকায় বসবাস করে বলে জানা যায়।

পুলিশ জানায়, সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) দল বেঁধে ধর্ষণের শিকার ওই তরুণী পোশাক কারখানার কাজ শেষে বাসায় ফিরছিলেন। এ সময় উত্তর গাজীর চট এলাকায় পৌঁছালে বখাটে কাইয়ূম ও তুহিন তরুণীকে জোর করে একটি কক্ষে নিয়ে যায়। পরে কাইয়ূম ও তুহিন পালাক্রমে ওই পোশাক শ্রমিককে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায় ।

অপর ঘটনার ব্যাপারে পুলিশ জানায়, গাচীরচট এলাকায় চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ওই তরুণীকে একটি রুমে নিয়ে যায় সজল নামের এক গাড়িচালক। পরে সারফিন নামের আরো এক গাড়িচালকের সহযোগিতায় ওই তরুণীকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায় তারা।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ফজিকুল ইসলাম জানান, উভয় ঘটনার অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। ঘটনার সাথে জড়িত ৩ ব্যক্তিকে আটক করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। ধর্ষণের শিকার দুই তরুণীকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেলের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে।

উভয় ঘটনায় আশুলিয়া থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী তরুণীরা।

এনআই

আরও পড়ুন

Islami Bank