• ঢাকা
  • শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০, ৪ মাঘ ১৪২৬

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা

মুজিববর্ষ
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৭, ২০১৯, ১২:২৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ৭, ২০১৯, ১২:২৭ পিএম

নড়াইলে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

নড়াইল সংবাদদাতা
নড়াইলে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

নড়াইলের কালিয়া উপজেলার পারবিষ্ণুপুর গ্রামে গৃহবধূ তামান্না খাতুনকে (২০) পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী, শ্বশুর-শাশুড়িসহ পরিবারের সদস্যরা পালিয়ে গেছে। শনিবার (৭ ডিসেম্বর) সকালে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। সে ওই গ্রামের শিপানের স্ত্রী।

তামান্না খাতুনের বাবা কালিয়া উপজেলার খড়রিয়া গ্রামের ইটভাটা শ্রমিক আকতার মোল্যা জানান, প্রায় তিন বছর আগে পারবিষ্ণুপুর গ্রামের রব্বেল শেখের ছেলে দিনমজুর শিপানের সঙ্গে তার মেয়ের বিয়ে দেন। বিয়ের সময় জামাই শিপানকে এক লাখ টাকাসহ আরো এক লাখ টাকার আসবাবপত্র দেন। তবে মেয়ের জীবন সুখের হয়নি। বিয়ের পর থেকে স্বামী শিপানসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন তার মেয়ে তামান্নাকে প্রায়ই নির্যাতন করত। স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ির নির্যাতন সহ্য করতে না পেয়ে তামান্না কয়েকবার বাবার বাড়িতে চলে আসে। এ নিয়ে পুরুলয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একবার সালিশ করেও কাজ হয়নি। সর্বশেষ গত ১৬ নভেম্বর শিপানদের প্রতিবেশি লিটন ও আনোয়ার এসে তামান্নাকে বাবার বাড়ি (খড়রিয়া) থেকে শ্বশুরবাড়ি নিয়ে যায়। তামান্নাকে আর নির্যাতন করবে না-এমন অঙ্গীকার করেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এরপরও তাকে একমাসের কম সময়ের মধ্যে তিনবার নির্যাতন করা হয়েছে। সর্বশেষ গত শুক্রবার মাছকাটাকে কেন্দ্র করে তামান্নাকে তার শাশুড়ি মারধর করে বলে অভিযোগ। 

আকতার মোল্যা অভিযোগ করে বলেন, শুক্রবার বিকালে আমার মেয়ে মোবাইল ফোনে এ মারধরের কথা আমাকে জানায়। এ সময় তামান্নার এক বছরের শিশু সন্তান তাসলিমাও আমার সঙ্গে আধো আধো কথা বলার চেষ্টা করে। এরপর রাত ১২টার দিকে শিপানের প্রতিবেশি আনোয়ার তার মোবাইল ফোনে আমার মেয়ে তামান্নার অসুস্থতার খবর জানিয়ে এক্ষুণি ওই বাড়িতে (শ্বশুরবাড়ি) আমাদের আসতে বলেন। মেয়ের অসুস্থতার খবরে বিচলিত হলে পড়লে এক পর্যায়ে আনোয়ার আমাকে বলেন, তামান্না মারা গেছে। আমাদের পরিবারের লোকজন ওইবাড়িতে গিয়ে দেখতে পায়, তামান্নাকে পিটিয়ে হত্যা করে ঘরের মধ্যে লেপ দিয়ে ঢেকে রেখে তার স্বামী, শ্বশুর-শাশুড়িসহ পরিবারের সাত সদস্য সবাই বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে। তামান্নার মুখের বাম পাশে আঘাতের চিহৃ আছে। তাকে বালিশ চাপা দেয়া হয়েছে বলেও মনে হচ্ছে।

পুরুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিরু ইসলাম মনি বলেন, তামান্নাকে নির্যাতনের ঘটনায় সালিশ করেও তাদের দাম্পত্য জীবন সুখের হয়নি। অবশেষে মেয়েটিকে লাশ হতে হলো।

কালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, শনিবার সকালে গৃহবধূ তামান্নার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে। এ ঘটনায় তামান্নার শ্বশুরবাড়ির লোকজন পলাতক রয়েছে বলেও জানান তিনি।

কেএসটি

আরও পড়ুন