• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০২০, ৪ মাঘ ১৪২৬

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা

মুজিববর্ষ
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৭, ২০১৯, ০২:০২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ৭, ২০১৯, ০২:১৬ পিএম

বিচারপতিপুত্রকে হাইকোর্টে আইনজীবী করার পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তি

মাহমুদুল আলম
বিচারপতিপুত্রকে হাইকোর্টে আইনজীবী করার পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তি
সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন

বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকীর ছেলে জুম্মান সিদ্দিকীকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী করার পরিপ্রেক্ষিতে এর পক্ষে-বিপক্ষে নানা যুক্তি তুলে ধরছেন সংশ্লিষ্টরা। আইন ও আদালত অঙ্গণে এই নিয়ে যেমন তর্কবিতর্ক চলছে, তেমনি মন্তব্য চর্চায় পিছিয়ে নেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমও।

আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ার পরও বিচারপতিপুত্র মুহম্মাদ জুম্মান সিদ্দিকীকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গত ২১ নভেম্বর হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করা হয়। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন এই রিট আবেদন করেন।

বিষয়টি নিয়ে শুক্রবার (৬ ডিসেম্বর) রিটকারী আইনজীবী সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের সঙ্গে দৈনিক জাগরণের কথা হয়।

এই ইস্যুতে সামাজিক মাধ্যমে যারা লিখেছেন তাদের একজন ইংল্যান্ড প্রবাসী ব্যারিস্টার নিঝুম মজুমদার। নিজের ফেসবুক একাউন্টে এই ইস্যুতে একটি লেখা তিনি ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনকেও ট্যাগ করেন। ওই ফেসবুক পোস্ট দৈনিক জাগরণের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

তিনি লিখেছেন, ‘মুহম্মাদ জুম্মান সিদ্দিকীকে বাংলাদেশ সূপ্রীম কোর্টে আইনজীবি হিসেবে প্র্যাক্টিসের অনুমতি দেয়া হয়েছে এবং এটি নিয়ে আইনজীবি মহলে খুব আলোচনা ও সমালোচনা হচ্ছে। আমি যেহেতু এই গেজেটের ঘোষণার মাধ্যমে সুবিধাপ্রাপ্ত পার্টি ফলে এই ব্যাপারে আসলে না লিখলেই নয় বলেই মনে করছি। আজকে ব্যারিস্টার সুমন ভাই এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে রিট করেছেন সংবাদে দেখলাম। 

বাংলাদেশের বার কাউন্সিলে এনরোলমেন্ট পরীক্ষা, এটির পদ্ধতি, পুরো সিস্টেম, বার কাউন্সিলের ভূমিকা, বাংলাদেশের নিম্ন ও উচ্চ আদালতের প্র্যাক্টিস, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড থেকে আইনজীবী হয়ে আসা ব্যক্তিদের নিজেদের ভেতরে ভয়াবহ রেষারেষি, রেসিস্ট টাইপের নোংরা কোন্দল, এসব নিয়ে লেখা হওয়াটা জরুরি।

আজকে ব্যারিস্টার সুমন ভাইয়ের রিট করাটা আমাকে ভাবিয়েছে। সুমন ভাই কি কোনো ভ্যালিড পয়েন্ট থেকে আইনের আশ্রয় চেয়েছেন নাকি আমি ইংল্যান্ড থেকে পাশ করেছি আর জুম্মান নিউজিল্যান্ড থেকে পাশ করেছে এই ব্যাপারটি তার কাছে মুখ্য হয়েছে? নাকি তিনি আসলেই আইনি প্রতিকার চেয়েছেন?

এসব কিছু নিয়ে দীর্ঘ আলোচনার আগে, আমি আমার ফেসবুকে ও ফেসবুকের বাইরে থাকা সকল আইনজীবী, আইনের ছাত্র-ছাত্রী কিংবা ইন্টারেস্টেড পার্টি যারা এই স্ট্যাটাস দেখছেন তাঁদের কাছে মতামত চাইছি এই বিষয়ে।'

ফেসবুক একাউন্টে দেয়া আরেকটি স্ট্যাটাসে নিঝুম লিখেছেন, ‘এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই। একটা ব্যাপার খুব অবাক লাগে যে বার বার করে বলা হচ্ছে জুম্মান সিদ্দিকী বিচারপতির ছেলে তাই তিনি সার্টিফিকেট পেয়েছেন এবং আরেকটা কথা বলা হয় যে জুম্মান বার কাউন্সিল পরীক্ষায় কয়েকবার অকৃতকার্য হয়েছে। 

অথচ কাউকে দেখিনি এই দুইটি ব্যাপার খণ্ডন করে কিছু লেখে। সবাই স্রোতের মধ্যে গা ভাসিয়ে আইদার এই পক্ষ না হয় অন্য পক্ষ এই টাইপ দল বানিয়ে ঘোঁট পাকাতে থাকে। 

প্রথমত, এই সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ বার কাউন্সিলের আইন মেনেই হয়েছে। এখানে কে প্রধানমন্ত্রীর ছেলে আর কে বিচারপতির ছেলে এটা মোটেও মুখ্য না। 

আর দ্বিতীয়ত হচ্ছে জুম্মান বার কাউন্সিলের পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েছেন যদি সত্য ধরে নেই তাহলে এটাও আমরা স্বীকার করে নেব যে অকৃতকার্য হবার পর উনি কাউকে কিল ঘুষি মেরে হাইকোর্টে ঢোকেন নি। অকৃতকার্য হবার পর তিনি বার কাউন্সিলের যে অন্য রুট আছে, অন্য অপশন রয়েছে সেটি সম্পূর্ণভাবে মেনে নিয়েই এনরোলড হয়েছেন।

জুম্মান নিউজিল্যান্ড হাইকোর্টের ব্যারিস্টার ও সলিসিটর হিসেবে এনরোলোড হয়েছেন। তারপর বাংলাদেশের বার কাউন্সিলের ধারা ২১(১)(বি) এই বলেই বাংলাদেশে প্র্যাক্টিসে অনুমতি পেয়েছেন।

হিংসাত্মক মনোভাব পরিহার করেন, উনি নিউজিল্যান্ডের আমি ইংল্যান্ডের বা আমি অস্ট্রেলিয়ার এইসব কথা-বার্তা বলে দল না পাকিয়ে কিভাবে বাংলাদেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সকলে মিলে একযোগে কাজ করা যায় এই চিন্তা নিজে করেন এবং চিন্তার বিকাশ ঘটান। এতে আখেরে সবাই উপকৃত হবে।’
  
রিটের পরিপ্রেক্ষিতে জানতে চাইলে দৈনিক জাগরণকে সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, ‘রিটে ওই গেজেট এবং ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ বার কাউন্সিল অর্ডারের ২১(১)(বি) ও ৩০(৩) ধারা চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে। তাকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী ঘোষণা করা গেজেটে এই দুইটি ধারা উল্লেখ করা হয়েছে।’

সুমন বলেন, ‘কয়েকটি বিষয় ভেবে এই রিট করেছি। এর একটি হচ্ছে এ সংক্রান্ত ধারা তার জন্য, যিনি ১৯৭২ সালের ‘বার কাউন্সিল অর্ডার, ১৯৭২’ পাস হওয়ার আগে অন্য কোনো দেশের কোন বারের সদস্য হয়েছেন। তাছাড়া বিদেশি যে কোনো বারের সদস্য হলেই হবে না, ওই বারকে বাংলাদেশ সরকার গেজেট প্রকাশের মাধ্যমে স্বীকার করে নিয়েছে কি না, তাও দেখতে হবে।’

গেজেট প্রকাশের মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকার স্বীকার করে নিয়েছে বিদেশি তেমন কোন বার আছে কি না? এই প্রশ্নের জবাবে সুমন বলেন, ‘না, তেমন কোন বিদেশি বার নেই।’

হাইকোর্টের আইনজীবী হওয়ার স্বাভাবিক প্রক্রিয়ার উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘হাইকোর্টের আইনজীবী হওয়ার পরীক্ষা দিতে হলেও আগে প্রার্থীকে জজকোর্টের আইনজীবী হিসেবে এনরোল্ড হতে হয়। কিন্তু এই গেজেটের মাধ্যমে যাকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী ঘোষণা করা হয়েছে, তিনি তো জজকোর্টেরই এনরোল্ড আইনজীবী নন।’

তিনি বলেন, ‘এনরোলমেন্ট কমিটি যদি কাউকে ফেল করান, তাহলে বারের এক্সিকিউটিভ কমিটি এই ধারায় কাউকে সরাসরি আইনজীবী ঘোষণা করার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু এই গেজেটে যাকে আইনজীবী ঘোষণা করা হয়েছে,  তাকে এনরোলমেন্ট কমিটি ফেল করিয়েছেন বলে কোন কাগজতো এক্সিকিউটিভ কমিটির কাছে নেই।’

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘রিটে সংশ্লিষ্ট এই ধারাটিও চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে। কারণ স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার জন্য এনরোলমেন্ট কমিটি করা হয় একজন বিচারপতির নেতৃত্বে। কিন্তু এই ধারার বলে বিচারপতির নেতৃত্বাধীন এনরোলমেন্ট কমিটির সিদ্ধান্ত এড়িয়ে ভিন্ন সিদ্ধান্ত নিতে পারে এক্সিকিউটিভ কমিটি। এটা তো হওয়া উচিৎ নয়।’

হাইকোর্টের দুটি পৃথক বেঞ্চ রিট আবেদনটি শুনতে বিব্রতবোধ ও অপারগতা প্রকাশ করেছে। পরে অন্য একটি বেঞ্চ রিটটি শুনার জন্য গ্রহণ করেছে।

আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ হওয়ার পরও এক বিচারপতির ছেলেকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গত ২১ নভেম্বর এই রিট দায়ের করা হয়।

রিট আবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ বার কাউন্সিল পরীক্ষায় কয়েকবার অংশ নিয়েও কৃতকার্য হতে পারেনি হাইকোর্টের বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকীর ছেলে মো. জুম্মান সিদ্দিকী।

অথচ জুম্মান সিদ্দিকীকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে গত ৩১ অক্টোবর গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে।

রিটে ওই গেজেট এবং ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ বার কাউন্সিল অর্ডারের ২১(১) (খ) ও ৩০(৩) ধারা চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে। জুম্মান সিদ্দিকীসহ বার কাউন্সিলের সংশ্লিষ্টদের রিটে বিবাদী করা হয়েছে।

এমএ/একেএস
 

আরও পড়ুন