• ঢাকা
  • শনিবার, ১৫ মে, ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
প্রকাশিত: মে ১, ২০২১, ১২:১৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : মে ১, ২০২১, ১২:২০ পিএম

সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা প্রাচীন এক মমি!

সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা প্রাচীন এক মমি!

সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা প্রাচীন এক মমির সন্ধান পেয়েছেন গবেষকরা। অবাক হচ্ছেন! পৃথিবীর প্রথম কোনও অন্তঃসত্ত্বা নারীর মমি এটি। যদিও গবেষকরা এতো বছর ধারণা করেছেন, মমিটি কোনও পুরুষ পুরোহিতের হতে পারে। তবে এক্স-রে এবং কম্পিউটার পরীক্ষার পর গবেষকদের ধারণা পুরোটাই উল্টে গেল। এক নারীর মমি এটা, তাও আবার অন্তঃসত্ত্বা।

সম্প্রতি Journal of Archaeological Science-তে গবেষণাটি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। যেখানে গবেষকদের আশ্চর্য এই আবিস্কারকে তুলে ধরে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৮২৬ সালের কথা। পোল্যান্ডের বৃহত্তম শহর ওয়ারশো্ পৌঁছায় প্রাচীন এই মমিটি। যা পেয়ে অবাক হোন গবেষকরা। 

নৃতত্ত্ববিদ ও প্রত্নতত্ত্ববিদ মার্জেনা ওজারেক বলেন,  "মমিটি যে কফিনে ছিল তার উপরে খোদাই করা এক পুরোহিতের নাম। গবেষণা করে দেখা যায় মমিটির কোনও পুরুষাঙ্গ নেই! তবে স্তনসহ রয়েছে লম্বা চুল। আগ্রহ আরও বেড়ে যায়। বিস্তর গবেষণায় উঠে আসে, এটি একটি নারী। এবং তিনি সাত মাসের সন্তানকে গর্ভধারণ করে ছিলেন।"

"মমিটির ওই নারী মিশরীয় হবেন। যার বয়স হতে পারে ২০-৩০ বছরের মধ্যে। গর্ভস্থ শিশুটিকে নিয়ে ধারণা করা হচ্ছে এটি ২৬-২৮ সপ্তাহের পূর্ণাঙ্গ রূপ ছিল।"

মমিটি নিয়ে আরও গবেষণা চালিয়ে যান গবেষকরা। প্রাচীন মিশরে অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের কী ধরনের চিকিৎসায় পদ্ধতি ব্যবহার হত, সেই ধারণা পেতেই তারা গবেষণা করেছেন।