• ঢাকা
  • বুধবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৯, ১ কার্তিক ১৪২৬
প্রকাশিত: অক্টোবর ৯, ২০১৯, ১১:০৫ এএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ৯, ২০১৯, ১১:০৫ এএম

হাসপাতালে সম্রাটের শয্যাপাশে থাকা নিয়ে দেবর-ভাবীর বাকবিতণ্ডা

জাগরণ ডেস্ক
হাসপাতালে সম্রাটের শয্যাপাশে থাকা নিয়ে দেবর-ভাবীর বাকবিতণ্ডা

যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী ওরফে সম্রাট জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে স্থিতিশীল অবস্থায় আছেন। সম্রাটকে সিসিইউতে (করোনারি কেয়ার ইউনিট) স্থানান্তর করার পর তার শয্যাপাশে থাকা নিয়ে দ্বিতীয় স্ত্রী শারমীন ও ছোট ভাই বাদলের মধ্যে সেখানে বাকবিতণ্ডা হয়। পরে পুলিশের নির্দেশে তারা হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যান।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতলে এ ঘটনা ঘটে।

সিসিইউ সংশ্লিষ্টদের বরাত দিয়ে চ্যানেল আই অনলাইনকে জানায়, যুবলীগ নেতা সম্রাটকে সিসিইউতে স্থানান্তরের পর সেখানে তার দ্বিতীয় স্ত্রী শারমীন চৌধুরী এবং তার ভাই বাদল উপস্থিত হন। এ সময় তারা সম্রাটের শয্যাপাশে কে থাকবে দুজনে তর্ক শুরু করে।

বাকবিতণ্ডার বিষয়টি পুলিশ দেখতে পেয়ে তাদের কাছে গিয়ে জানাতে চায় কোন রোগীর লোক তারা? তারা সম্রাটের নাম না বলে বেড নম্বর ১২ বলেন। কিন্তু তখনও সম্রাটকে ওই বেডে নেয়া হয় নি। খানিকক্ষণ পরে পুলিশ বিষয়টি বুঝতে পরে দ্রুত তাদের হাসপাতাল ছেড়ে বেড়িয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন।

পরে পুলিশের নির্দেশে তারা দুজনেই হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যান। বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে সম্রাটের দ্বিতীয় স্ত্রী শারমীন চৌধুরীর সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

সিসিইউ সংশ্লিষ্ট একজন জানান, এই ঘটনার পর সম্রাটকে সিসিইউ-১ এর বি-১২ শয্যায় স্থানান্তর করা হয়। সেখনে তার শয্যাপাশে কারা কর্তৃপক্ষ, পুলিশ এবং গোয়েন্দা বাহিনীর সদস্যরা আছে।

মঙ্গলবার বুকে ব্যথা অনুভব করলে সকাল সাড়ে ৭টায় সম্রাটকে কারাগার থেকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেয়া হয়। এরপর ঢামেক চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে নিয়ে আসে কারা কর্তৃপক্ষ।চ্যানেল আই অনলাইন

এসএমএম

আরও পড়ুন

Islami Bank