• ঢাকা
  • বুধবার, ১৭ আগস্ট, ২০২২, ২ ভাদ্র ১৪২৯
প্রকাশিত: জুলাই ৫, ২০২২, ১২:৪৫ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জুলাই ৪, ২০২২, ০৬:৪৫ পিএম

বিশ্বকাপ ফুটবল ২০২২

হাইটেক অফসাইড প্রযুক্তি ব্যবহার করবে ফিফা

হাইটেক অফসাইড প্রযুক্তি ব্যবহার করবে ফিফা
প্রতীকী ছবি

চলতি বিশ্বকাপ ফুটবলে নির্ভুল অফসাইড নিরূপণের জন্য নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করতে যাচ্ছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা। ব্যবহার করা হবে লিম্ব-ট্র্যাকিং ক্যামেরা সিস্টেম।

ফিফা জানায়, সেমি-অটোমেশন অফ-সাইড টেকনোলজি (এসএওটি) স্থাপনের জন্য তারা প্রস্তুত। যেখানে খেলোয়াড়দের গতিবিধি ও সেন্সরকৃত বল শনাক্ত করার জন্য বিভিন্ন ধরেন ক্যামেরা ব্যবহার করা হবে। এতে বেশ দ্রুত ত্রিমাত্রিক চিত্র ফুটে উঠবে স্টেডিয়ামে স্থাপিত স্ক্রিনে।

ফলে রেফারি যেমন সহজেই অফ-সাইডের সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন, তেমনি সমর্থকরাও বিষয়টি অনুধাবন করতে পারবে।

এই নিয়ে টানা তিনটি বিশ্বকাপে রেফারিদের সহায়তার জন্য নতুন প্রযুক্তি যুক্ত করতে যাচ্ছে ফিফা।

২০১০ আসরে রেফারিং নিয়ে বিতর্ক দেখা দেয়ায় ২০১৪ সালের ব্রাজিল বিশ্বকাপে যুক্ত হয়েছিল গোল লাইন প্রযুক্তি।

২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ্বকাপে যুক্ত হয় ভিডিও রিভিউ, যা গেম পরিবর্তনের ঘটনা পর্যালোচনা করে রেফারিকে রায় দিতে সাহায্য করে।

নতুন অফ-সাইড প্রযুক্তি পূর্বের ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির (ভিএআর) তুলনায় আরো দ্রুত ও নিখুঁত সিদ্ধান্ত প্রদানে সহায়তা করবে। কারণ ২০১৮ বিশ্বকাপে অফ-সাইড দেয়ার সময় বড় ভুলগুলি এড়িয়ে গিয়েছিল।

এরপর থেকে ইউরোপীয় লিগগুলোতে বিতর্ক ছড়িয়ে পড়ে। বিশেষ করে যখন ভিএআর কর্মকর্তারা সূক্ষ্ম নির্দেশনার জন্য খেলোয়াড়দের উপর অন স্ক্রিন লাইন টানেন। ফলে এদের ‘বগলের অফ-সাইড’ বলে উপহাস করা হয়।

তবে প্রাক প্রযুক্তির যুগ ২০০২ বিশ্বকাপ থেকে কাজ করা ফিফার রেফারিং কার্যক্রমের শীর্ষ কর্মকর্তা পিয়েরলুইজি কোলিনা বলেছেন, ‘এবারের যন্ত্রপাতিগুলো অপেক্ষাকৃত সূক্ষ্ম এবং এর সঠিকতার উন্নয়ন ঘটানো হয়েছে।’

কাতারের প্রতিটি স্টেডিয়ামে প্রতি সেকেন্ডে ৫০ বার প্রত্যেক খেলোয়াড়ের শরীরের ২৯টি ডেটা পয়েন্ট ট্র্যাক করার জন্য ছাদের নীচে ১২টি ক্যামেরা সিংক্রোনাইজ করা হবে। যা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে একটি ত্রিমাত্রিক অফ-সাইড লাইন তৈরি করে ভিএআর কর্মকর্তাদের সতর্ক করবে।

জাগরণ/বিশ্বকাপফুটবল/এসএসকে