• ঢাকা
  • রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯, ২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: অক্টোবর ২০, ২০১৯, ০৮:৪৩ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ২০, ২০১৯, ০৮:৪৩ পিএম

রাবি শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাত

ছাত্রলীগের দুই নেতাসহ আটক ৫

রাবি সংবাদদাতা
ছাত্রলীগের দুই নেতাসহ আটক ৫
পুলিশের হাতে আটক ছাত্রলীগের দুই নেতা  -  ছবি : জাগরণ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অর্থনীতি বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ফিরোজ আনামকে ছিনতাইকালে ছুরিকাঘাতে জড়িত সন্দেহে ছাত্রলীগের দুই নেতাসহ এ পর্যন্ত ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

রোববার (২০ অক্টোবর) দুপুরে দুজন এবং শনিবার (১৯ অক্টোবর) তিনজনকে আটক করে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে ছিনতাইকালে ব্যবহৃত একটি মোটরসাইকেল জব্দ করে পুলিশ।

মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে গ্রেফতার দেখানো হবে।

আটককৃতরা হলেন বিশ্ববিদ্যালয়-সংলগ্ন মির্জাপুর এলাকার আব্দুল আজীজের ছেলে অনিক মাহমুদ বনি ও মোস্তাকিনের ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান মিঠু। অনিক মাহমুদ বনি রাবি ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত নেতা। মোস্তাফিজুর রহমান মিঠু রাজশাহী কলেজ ছাত্রলীগের নেতা।

শনিবার আটককৃত তিনজন হলেন নগরীর তালাইমারী এলাকার জাহিদের ছেলে রুবেল হোসেন (২৪) এবং শিরোইলের স্থানীয় ছবির হোসেনের ছেলে রিফাত হোসেন। আরেকজনের নাম জানা যায়নি।

এর আগে শুক্রবার রাতভর মহাসড়ক অবরোধের পর শনিবার ছুরিকাঘাতের ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবিতে বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে মানববন্ধন করেন শিক্ষার্থীরা। দুপুর ১২টার দিকে পুনরায় ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করেন। পরে দুপুরের দিকে ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের নিষিদ্ধ করে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত, ফিরোজ আনামকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে ডিবি তুলে নেয়ার কারণ ব্যাখ্যা ও দুঃখ প্রকাশ করাসহ ৩ দফা দাবি জানিয়ে ২১ ও ২২ তারিখ ভর্তি পরীক্ষা থাকায় ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত করা হয়।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সন্ধ্যায় ফিরোজ আনামের কাছ থেকে ছিনতাইকালে তার মাথায় হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে ছিনতাইকারীরা। এতে ফিরোজের মাথায় গুরুতর জখম হয়। পরে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখনো তিনি চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতেই ফিরোজ বাদী হয়ে নগরীর মতিহার থানায় অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করেন।

এনআই

আরও পড়ুন