• ঢাকা
  • শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ১৩, ২০১৯, ০৯:২৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ১৩, ২০১৯, ০৯:২৭ পিএম

নিজেদের বাল্যবিবাহ বন্ধ করে সাহসিকতার সনদ পেল ৩ স্কুলছাত্রী

গুরুদাসপুর (নাটোর) সংবাদদাতা
নিজেদের বাল্যবিবাহ বন্ধ করে সাহসিকতার সনদ পেল ৩ স্কুলছাত্রী
নিজের বাল্যবিবাহ নিজেই বন্ধ করে সাহসিকতার সনদ নিচ্ছে এক শিক্ষার্থী  -  ছবি : জাগরণ

নাটোরের গুরুদাসপুরে নিজের বাল্যবিবাহ নিজেরাই বন্ধ করায় ৩ জন শিক্ষার্থীকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেয়া হয়েছে সাহসিকতার সনদ।

বুধবার (১৩ নভেম্বর) দুপুরে উপজেলা সদরের চাঁচকৈড় মধ্যমপাড়া শাহিদা কাশেম পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের তিনজন শিক্ষার্থীর হাতে সাহসিকতার সনদ ও বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী বই তুলে দেন ইউএনও তমাল হোসেন। নিজেদের বাল্যবিবাহ নিজেরাই বন্ধ করে সাহসিকতার পুরস্কার পাওয়া তিনজন শিক্ষার্থী ওই বিদ্যালয়ের শাহানুর (৬ষ্ঠ শ্রেণি), রহিমা (৭ম শ্রেণি) ও কামরুন্নাহার (৭ম শ্রেণি)। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. হাফিজুর রহমান, শাহিদা কাশেম পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিগার সুলতানাসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

ইউএনও তমাল হোসেন জানান, গত সোমবার (১১ নভেম্বর) বিকেলে শাহিদা কাশেম পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের তিনজন শিক্ষার্থী আমাকে ফোন করে তাদের পরিবার থেকে মঙ্গলবার বিয়ে দেবে বলে জানায় এবং বিয়ে বন্ধ করার জন্য বলে। কারণ তারা পড়াশোনা করতে চায়। পরে মঙ্গলবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে তিন শিক্ষার্থীর পরিবারের অভিভাবকদের কাছ থেকে ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবে না মর্মে মুচলেকা নেয়া হয়।

ইউএনও আরো বলেন, বুধবার দুপুরে ওই বিদ্যালয়ে গিয়ে তিন শিক্ষার্থীকে নিজেদের বিয়ে নিজেরা বন্ধ করায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেয়া হয়েছে সাহসিকতার পুরস্কার ও বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী বই। মেয়েদের উৎসাহিত করতেই আমার এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। বাল্যবিবাহ ও ইভটিজিং প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসন বদ্ধপরিকর।

এনআই

আরও পড়ুন