• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল, ২০২০, ২৪ চৈত্র ১৪২৬
প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২০, ০৭:৫৭ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২০, ০৭:৫৭ পিএম

বইমেলায় আসছে সিনথিয়া খানের ‘প্রজাপতি মন’

জাগরণ প্রতিবেদক
বইমেলায় আসছে সিনথিয়া খানের ‘প্রজাপতি মন’
‘প্রজাপতি মন’ বইয়ের প্রচ্ছদ ও কবি সিনথিয়া খান

অমর একুশে বইমেলায় আসছে সিনথিয়া খানের কবিতার বই ‘প্রজাপতি মন’। বইটি সম্পর্কে কবি সিনথিয়া খান লিখেছেন, মানুষ বড়ই রহস্যময়। প্রতিটি মানুষের অনেক রূপ। একই মানুষ কখনো সন্তান, কখনো প্রেমিক-প্রেমিকা, কখনো স্বামী-স্ত্রী, আবার কখনো বাবা-মা। একই হৃদয়ে শ্রদ্ধা, ভালোবাসা আর স্নেহের বসবাস।

কখনো পাওয়ার আনন্দ তাকে গোলাপি গোধূলিতে রঙিন করে। কখনো খুব আকাঙ্ক্ষিত কিছু না পাওয়ার বেদনা তাকে নীল করে। প্রতিটি আবেগময় মানুষ স্বপ্ন দেখতে চায়। কখনো স্বর্ণালি স্মৃতি রোমন্থনে, কখনো ভবিষ্যতের আলোকময় ভালোবাসার মধুর আলিঙ্গন কল্পনা করে।

কখনো অতীত হয়তো এতটা নির্মম যে মানুষ সেই কষ্ট সবার অলক্ষ্যে বুকে নিয়ে চলে আমরণ। কষ্টের সেই বিষাক্ত যন্ত্রণায় সে ছটফট করে।

ভালোবাসা স্বভাবতই আসে অপ্রত্যাশিতভাবে তার সাত রং নিয়ে। কারো কারো স্থান, কাল, পাত্রভেদে ভালোবাসা গ্রহণ করা সম্ভব হয় না। তবু মনের গভীরে ভালোবাসা রয়েই যায়। আবার কখনো ভালোবাসা হয় ধূসর আটপৌঢ়ে। প্রতিদিনের কাজের ব্যস্ততায় তা অবহেলিত হয়ে পড়ে থাকে ঘরের কোণে। বাস্তবতা নিরিখে ভালোবাসা অন্তহীন দিগন্তে ঘুরে বেড়ায় তাকে রোধ করা অনেকটা বালুর বাঁধ নির্মাণের মতো। আকার-প্রকার প্রকরণ বা বিত্ত-বেসাতির জালে তাকে বন্দী করা সম্ভব নয়।

তাইতো জীবনানন্দ দাশ লিখেছেন, ‘অর্থ নয়, কীর্তি নয়, সচ্ছলতা নয়-
                                            আরো-এক বিপন্ন বিস্ময়
                                            আমাদের অন্তর্গত রক্তের ভিতরে
                                            খেলা করে’

কী সেই বিপন্ন বিস্ময়? সিনথিয়া খান তার লেখায় সেই সুপ্ত কথাটি শিল্পিত বিন্যাসে বলেছেন।

প্রজাপতির মতো মন প্রতিটি মানুষের, প্রজাপতির মতোই বিচিত্র রঙে রঙিন... 

সিনথিয়া খান ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ কৌশলে দুটি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপর টেক্সাস ইনস্ট্রুমেন্টস প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেছেন এক যুগ। পরে তিনি ‘ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাস এট অস্টিনে এমবিএ ডিগ্রি নেন। বর্তমানে তিনি ব্যাংক অব আমেরিকা প্রতিষ্ঠানে আইটি ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে কর্মরত।

স্বামী আর তিন সন্তান নিয়ে সিনথিয়ার সুখী পরিবার। পরিবার আর কর্মময় ব্যস্ত জীবনের মাঝেও মনের তাড়নায় কলম তুলে নেন। লিখতে গিয়ে নিজের স্বতঃস্ফূর্ত ভাবনাকে তুলে ধরেন তার লেখনশৈলীর মাধ্যমে। মানব সম্পর্কের জটিলতা পাওয়া না-পাওয়া অথবা মধুরতা তাকে আকৃষ্ট করে লেখালেখির জন্য। প্রতিটি কবিতা আশপাশের মানব-মানবীদের পর্যবেক্ষণে তার হৃদয় নিঙড়ানো কিছু অনুভূতির প্রকাশ। তার এই শিল্পিত প্রকাশের ভাষা ও স্ট্রাকচার নির্মাণের সরলতা পাঠককে টানে। সুখপাঠ্য এ বইটি প্রকাশ করেছে আইডিয়া প্রকাশন, প্রচ্ছদ এঁকেছেন ধ্রুব এষ। প্রচ্ছদের আলোকচিত্রী কামরুল হাসান মিথুন।

এফসি