• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৭ আগস্ট, ২০২০, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭
প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৩, ২০২০, ০৫:৪২ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ১৩, ২০২০, ০৫:৪২ পিএম

বিপিএল থেকে ঢাকার বিদায়, দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে চট্টগ্রাম

ক্রীড়া ডেস্ক
বিপিএল থেকে ঢাকার বিদায়, দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে চট্টগ্রাম

বঙ্গবন্ধু বিপিএলের এলিমিনেটর ম্যাচে ঢাকা প্লাটুনকে ৭ উইকেটে হারিয়ে তাদের বিদায় করে দিয়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে পৌঁছে গেল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স।

সোমবার (১৩ জানুয়ারি) দুপুরে মিরপুরে শুরু হওয়া ম্যাচে টসে হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান সংগ্রহ করেছে ঢাকা। 

ইনিংসের শুরুটা ভালোমতো করতে পারেননি ঢাকার ব্যাটসম্যানরা। রুবেল হোসেনের দ্বিতীয় ওভারে মাত্র ৩ রান করে বোল্ড হয়ে ফিরে যান ওপেনার তামিম ইকবাল।তামিমের বিদায়ের পর শূন্য রানে বিদায় নেন এনামুল হক বিজয় ও লুইস রেইস। বিজয়কে ফেরান নাসুম আহমেদ, রিসকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ওপেনার মুমিনুলকে সঙ্গ দিতে ব্যর্থ হন মাত্র ৭ রান করা মেহেদী হাসান।

৩১ বলে ৩১ রানে মুমিনুলের বিদায়ের আগে কোনো রান না করেই ফেরেন জাকের আলী। এরপর দলীয় ৫২ রানে ফিরে যান ওপেনার মুমিনুল। শ্রীলঙ্কান থিসারা পেরেরা ঝড় তোলেন। ১৩ বলে ২৫ রান করে রুবেলের বলে জিয়াউর রহমানের হাতে তিনি তালুবন্দি হন। ১০৪ রানে পেরেরার বিদায়ের পর চট্টগ্রামের বোলারদের শাসন করেন পাকিস্তানের সাদাব খান। ৪১ বলে ৬৪ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন এই অলরাউন্ডার। এই ইনিংসে ১৪টি সেলাই ও হাতে ব্যান্ডেজ বেঁধে মাঠে নেমেছেন মাশরাফী। ব্যাট হাতে তিনি ২ বল খেললেও রান করতে না পারলেও তিনি শাদাবকে যোগ্য সঙ্গ দেন।  

চট্টগ্রামের হয়ে ম্যাচ সেরা  রায়াদ এমরিট নেন সর্বোচ্চ ৩ উইকেট। ২টি করে উইকেট নেন রুবেল হোসেন ও নাসুম আহমেদ।

১৪৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা করেন চট্টগ্রামের দুই ওপেনার ক্রিস গেইল ও জিয়াউর রহমান। মারকাটারি ব্যাটিংয়ে উদ্বোধনী জুটিতে ৪২ রান তোলেন তারা। কার্যত সেখানেই জয়ের ভিত পেয়ে যায় দলটি। মেহেদী হাসানের শিকার হয়ে ১২ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় ব্যক্তিগত ২৫ রান জিয়াউর ফিরলেও থেকে যান গেইল।

পরে ইনফর্ম ইমরুল কায়েসকে নিয়ে হাল ধরেন ক্যারিবীয়ান ব্যাটিং দানব। দুজনই চার-ছক্কা হাঁকাতে থাকেন। তাতে বাড়তে থাকে চট্টগ্রামের রানের চাকা। জয়ের পথেও এগিয়ে যায় তারা। শাদাব খানের বলে সাজঘরে ফেরার আগে ২২ বলে ৩ ছক্কার বিপরীতে ১ চারে ৩২ রান করেন বাঁ হাতি ওপেনার ইমরুল কায়েস। 

সহযোদ্ধাকে হারিয়ে ক্রিজে বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেননি গেইল। একই বোলারের বলে বিদায় নেন তিনি। ফেরার আগে ৪৯ বলে ২ ছক্কার বিপরীতে ১ চারে ৩৮ রানের স্বভাববিরুদ্ধ ইনিংস খেলেন গেইল। তবে জয় তখন চট্টলার হাতছোঁয়া দূরত্বে। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১৪ বলে ৪ ছক্কার মারে ৩৪ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান। তার সঙ্গী ওয়ালটন ১২ রানে অপরাজিত থাকেন।

আরআইএস