• ঢাকা
  • বুধবার, ০১ ডিসেম্বর, ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
প্রকাশিত: অক্টোবর ২৭, ২০২১, ১২:৩১ এএম
সর্বশেষ আপডেট : অক্টোবর ২৬, ২০২১, ০৬:৩১ পিএম

রিয়াদ-সাকিবদের স্বপ্ন শেষ চারে খেলা

রিয়াদ-সাকিবদের স্বপ্ন শেষ চারে খেলা

সেমিফাইনালের আশা করা কঠিন, তারপরেও সাকিবদের স্বপ্ন শেষচারে খেলা। সেই লড়াইয়ে থাকতে হলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয় চাই বাংলাদেশের। কঠিন প্রতিপক্ষের সাথে নির্ভুল একটা ম্যাচের আশা করছেন বোলিং কোচ ওটিস গিবসনের।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) আবুধাবির শেখ আবু জায়েদ স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বিকাল ৪টায় ম্যাচ শুরু হবে।

ব্যাটিং প্র্যাক্টিসের সময় চোট পাওয়ায় শঙ্কা আছে সোহানকে নিয়ে। উইন্ডিজকে লজ্জায় ফেলার পর বাংলাদেশের বিপক্ষে বড় জয় চায় ইংল্যান্ড।

ফুরফুরে, হাসিমুখে কষ্ট ভোলার চেষ্টা রিয়াদ-সাকিবদের। এছাড়া যে উপায় নেই লড়াই টিকে থাকতে হবে বিশ্বকাপের মঞ্চে। সেখানে বড় চ্যালেঞ্জ ইংল্যান্ড। যাদের বিপক্ষে এর আগে কখনই টি-টোয়েন্টি খেলেনি বাংলাদেশ।

ঘুড়ে দাঁড়াতে সেরা ফর্মে ফিরতে উইকেট কন্ডিশন সম্পর্কে থাকতে হবে বিস্তর জ্ঞান। সেই সুযোগ পাচ্ছে না বাংলাদেশ। ম্যাচের আগের দিনে ম্যাচভেন্যুতে অনুশীলন করা হয় নি। ক্রিকেটাররা যেখানে থাকছেন, সেখান থেকে আবুধাবী প্রায় ১৫০ কিলোমিটার দূরে। টানা ম্যাচ, আর ধকলের মাঝে আর ভ্রমণ করতে চায়নি ম্যানেজেন্ট।

টি-টোয়েন্টিতে ম্যাচের বড় প্রভাবক হয়ে দাঁড়ায় ফিল্ডিং, শ্রীলঙ্কা ম্যাচের ভুল শুধরাতে আইসিসি একাডেমি মাঠে ফিল্ডিংয়েই বেশি মনোযোগ কোচিং স্টাফের। নিজেদের শানিয়ে নেয়ার সাথে ভাবনায় রাখতে হচ্ছে ইংল্যান্ডের শক্তি সামর্থ্যে। গেলবারের রানার্স আপ দলটির বড় শক্তি বোলিং লাইন আপ। লেগ স্পিনার আদিল রশিদ তো হয়ে উঠতে পারে ত্রাশ।

মাঠে ভুল হবেই তবে যারা কম করবে তারাই জিতবে। আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে। ব্যাটারদের সাথে বোলারদের জ্বলে উঠতে হবে। মুস্তাফিজের ওপর বিশ্বাস হারায় না আমি। পরিকল্পনা মতো খেলতে পারলে আমরা জয় পাবো বলে আশা করছেন বাংলাদেশের বোলিং কোচ ওটিস গিবসন।

বাংলাদেশের আত্মবিশ্বাস যেখানে তলানিতে সেখানে ফুরফুরে মেজাজে ইংল্যান্ড। আসরের শুরুটা হয়েছে স্বপ্নের মতো। উইন্ডিজকে ৫৫ রানে অল-আউট করে জয় পেয়েছে ছয় উইকেটে। খারাপ সময়ের মধ্যে দিয়ে গেলেও বাংলাদেশকে হালকা ভাবে নিচ্ছে না ইংল্যান্ড।

জস বাটলার জানান, টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলিনি। নিজেদের দিনে ওরা বিপজ্জনক দল। তবে ওডিআই খেলার অভিজ্ঞতা কাজে দেবে। ওদের কিছু ভালো ক্রিকেটার আছে, প্রতিপক্ষের সাথে নিজেদের পরিকল্পনা নিয়েও আমরা ভাবছি।

একাদশে একটা পরিবর্তন আসবে, অনেকটা নিশ্চিত। একজন স্পিনার কমিয়ে, নেয়া হতে পারে পেসার। সেখানে নাসুমের জায়গায় ফিরতে পারেন তাসকিন। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে স্পিডস্টারের অতিত পারফর্মেন্স এগিয়ে রাখছে দলে ফেরার রেইসে।

এর আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ের সুযোগ তৈরি করেও ম্যাচ হাতছাড়া হয়েছে। ব্যর্থতার কাঠগড়ায় ক্রিকেটারদের পারফর্ম্যান্স। খালি চোখে লিটনের দুই ক্যাচ মিস আর মাহমুদউল্লাহর ক্যাপ্টেন্সিকে দায়ী করছেন সমালোচকরা।

ব্যাকফুটে থাকলেও শেখ আবু জায়েদ স্টেডিয়ামের অতীত ইতিহাস বাংলাদেশকে সাহসী করছে। এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলেছিলো দুবাইয়ে, তবে সেবার আবুধাবিতে আফগানিস্তান ও পাকিস্তানকে হারিয়েছিলো টাইগাররা। একাদশে নাসুমের জায়গায় ফিরতে পারেন তাসকিন। রান বন্যা না হলেও এই উইকেটে তাড়া করে জয়ের রেকর্ড বেশি।

জাগরণ/এসএসকে/এমএ