• ঢাকা
  • শনিবার, ২৮ মে, ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৫, ২০২২, ১২:৪৬ এএম
সর্বশেষ আপডেট : জানুয়ারি ২৪, ২০২২, ০৬:৪৬ পিএম

মা হবার খবর দিলেন তামিমা, পাশে ছিলেন নাসির

মা হবার খবর দিলেন তামিমা, পাশে ছিলেন নাসির
ফাইল ফটো

ক্রিকেটার নাসির হোসেনের সঙ্গে তামিমা সুলতানা তাম্মীর বিয়ে নিয়ে মামলা নিষ্পত্তির আগেই সন্তানের বাবা-মা হচ্ছেন এই দম্পতি।

এই খবর আগে প্রকাশ হলেও, এনিয়ে নাসির-তামিমার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এবার এ বিষয়ে মুখ খুলেছেন তামিমা সুলতানা নিজেই। সঙ্গে ছিলেন স্বামী ক্রিকেটার নাসির হোসেন।

সোমবার (২৪ জানুয়ারি) ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে হাজিরা দিতে এসে তামিমা সাংবাদিকদের বলেন, কথাটি সত্যি, আমরা দু’জনই বাবা-মা হচ্ছি। সবাই দোয়া করবেন।

ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তার স্ত্রী পরিচয় দেয়া তামিমা সুলতানা তাম্মীসহ তিন জন বিচারিক আদালত মামলা থেকে অব্যাহতি চেয়ে আবেদন করেছেন।

সোমবার ঢাকার অতিরিক্ত মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন শুনানি শেষে আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি অব্যাহতির আদেশ দেয়ার তারিখ ঠিক করেন।

শুনানিতে নাসির ও তামিমার আইনজীবী কাজী নাজিবুল্লাহ হিরু বলেন, ‘তামিমা যথাযথভাবে রাকিবকে তালাক দিয়েছেন। তা কার্যকরের বিষয় কাজী অফিসের।

 

নাসিরের সঙ্গে যখন তামিমার বিয়ে হয় তখন কাবিননামায় তালাকপ্রাপ্ত লেখেন তামিমা। রাকিবকে তামিমা তালাক দিয়েছেন, এটা তাদের ব্যাপার।

এখানে সুমি আক্তারের (তামিমার মা) কোনো ভূমিকা নেই। তাই মামলার দায় হতে সবাইকে অব্যাহতির আবেদন জানাচ্ছি।

শুনানিতে রাকিবের আইনজীবী ইশরাত হাসান বলেন, ডিভোর্সের পরেও তামিমা-রাকিব একসঙ্গে থেকেছেন। আইনে আছে, যিনি তালাক দেবেন তিনি নোটিশ জারি করবেন। কিন্তু তামিমা নোটিশ জারি করেননি। রবং ভুয়া কাগজপত্র দাখিল করেছেন।

তালাকের পর রাকিবের নাম ও পরিচয় ব্যবহার করেছেন তামিমা। এ বিষয়ে তামিমার মা সব জানতেন।

‘তাই আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করতে আবেদন জানাচ্ছি। এরপরে বিচারক এ বিষয়ে আদেশের জন্য ৯ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন।’

এর আগে গত বছরের ৩১ অক্টোবর নাসির ও তামিমা ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালতে হাজির হয়ে জামিন পান।

গত বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর নাসির হোসেন এবং তামিমা সুলতানা তাম্মীর বিরুদ্ধে এ মামলায় সমন জারির নির্দেশ দেন আদালত।

 

মামলার তদন্তে ক্রিকেটার নাসির হোসেন, সৌদিয়া এয়ারলাইন্সের বিমানবালা তামিমা সুলতানা তাম্মী এবং তামিমার মা সুমি আক্তারকে দোষী উল্লেখ করে প্রতিবেদন জমা দেয় পিবিআই।

গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি ডিভোর্স পেপার ছাড়াই অন্যের স্ত্রীকে বিয়ে করার অভিযোগে নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে করা মামলাটি পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন আদালত।

এর আগে ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসীমের আদালতে তামিমার সাবেক স্বামী রাকিব হাসান বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

জাগরণ/এসএসকে/কেপি