• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৯, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
প্রকাশিত: নভেম্বর ৭, ২০১৯, ০৪:২৩ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : নভেম্বর ৭, ২০১৯, ০৪:২৫ পিএম

সভাপতি-সম্পাদকের যৌথ বিবৃতি

‘রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সংস্থার বিরুদ্ধে যড়যন্ত্র চলছে’

জাগরণ প্রতিবেদক
‘রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সংস্থার বিরুদ্ধে যড়যন্ত্র চলছে’

রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সংস্থার বিরুদ্ধে যড়যন্ত্রের অভিযোগ এনেছে সংস্থার সভাপতি সঙ্গীত শিল্পী তপন মাহমুদ ও সাধারণ সম্পাদক পীযূষ বড়ুয়া।

বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) তারা যৌথ এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘কতিপয় কিছু শিল্পী গোপনে সংস্থার নাম নিবন্ধন এবং সিগনেটরি পরিবর্তনের আবেদন তৈরি করে আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সংস্থা ও রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পীদের কল্যাণে গচ্ছিত অর্থ হস্তগত করার অপচেষ্টা করেছিলেন। যার কারণে সংস্থার নিবন্ধন কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত করেছে সমাজসেবা অধিদফতর।

তপন মাহমুদ ও পীযূষ বড়ুয়া সই করা বিবৃতিতে বলা হয়, ‘‘১৯৮৮ সাল থেকে বাংলাদেশ রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সংস্থা অত্যন্ত সুনামের সাথে দেশে রবীন্দ্রসঙ্গীতের প্রচার-প্রসারে এবং সঙ্গীত শিল্পীদের আর্থিক কল্যাণে তাদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। সংস্থার অনুমোদিত গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ১৫ দিনের নোটিশ দিয়ে দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভার মাধ্যমে নতুন কমিটি করার বিধান থাকায় তা অনুসরণ করে গত ৩০/০৮/২০১৯ তারিখে সংস্থার সাধারণ সভায় সাধারণ সদস্যদের গোপন মতামতের (গোপন ব্যালট) ভিত্তিতে আগামী দু’বছরের জন্য তপন মাহমুদ সভাপতি ও পীযূষ বড়ুয়া সাধারণ সম্পদক পদে নির্বাচিত হন। নির্বাচন বিরোধী ২/১জন শিল্পীর প্ররোচনায় সংস্থার সুনাম নষ্ট করা ও নিজেদের হীনস্বার্থ চরিতার্থ করার জন্যে দুঃখজনকভাবে অসত্য তথ্য দিয়ে সমাজসেবা দফতর থেকে কয়েকজন দলছুট শিল্পী (যাদের অধিকাংশই নির্বাচন প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ ও পরিচালনার সাথে যুক্ত ছিলেন) অত্যন্ত গোপনে সংস্থার নাম নিবন্ধন এবং সিগনেটরি পরিবর্তনের আবেদন তৈরি করে আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সংস্থা ও রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পীদের কল্যাণে গচ্ছিত অর্থ হস্তগত করার অপচেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু নিবন্ধন হবার আগেই সংস্থা নেতৃত্ব বিষয়টি জানতে পেরে সঠিক তথ্য ও প্রমাণ দেয়ার পর বাংলাদেশ সরকারের সমাজসেবা অধিদফতর তাদের সে নিবন্ধন প্রক্রিয়া স্থগিত করে এ বিষয়ে গত ১৭/১০/২০১৯ তারিখে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিশন গঠন করেছেন, যা বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন।’’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘‘আর্থিক প্রতিষ্ঠানটিও বিষয়টি সম্পর্কে সন্দেহ প্রকাশ করে নব-নির্বাচিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পদককে অবহিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে। তারপরেও সে মহলটি সংস্থার নাম তাদের পক্ষে নিবন্ধন করেছেন বলে দাবি করে শিল্পী এবং রবীন্দ্রানুরাগীদের বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা করে যাচ্ছেন। রবীন্দ্র চেতনাবিনাশী এ সব কর্মকাণ্ডে আমরা স্তম্ভিত, লজ্জিত ও দুঃখিত এবং এতে সব চেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন এদেশের রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পীবৃন্দ, ক্ষতি হচ্ছে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে সুস্থ ধারার বাঙালি সংস্কৃতি চর্চার অগ্রযাত্রা। আশা করি সবার শুভবুদ্ধির উদয় হবে এবং ব্যক্তিকেন্দ্রীক স্বার্থপরতা বাদ দিয়ে সবাই রবীন্দ্রালোকে উদ্ভাসিত হবেন।’’

এসএমএম

আরও পড়ুন