• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৭
প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২৬, ২০২০, ০৭:৫১ পিএম
সর্বশেষ আপডেট : ডিসেম্বর ২৬, ২০২০, ০৮:১০ পিএম

পাকিস্তানের আইনি নোটিশ

গুগল-উইকিপিডিয়াতে ইসলাম নিয়ে ভুয়া তথ্য

গুগল-উইকিপিডিয়াতে ইসলাম নিয়ে ভুয়া তথ্য

ইসলাম নিয়ে ভুয়া তথ্য ও কুরআনের ‘বিকৃত সংস্করণ’ প্রচারের অভিযোগে গুগল এবং উইকিপিডিয়াকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছে পাকিস্তান। ইন্টারনেট থেকে এসব ‘বিভ্রান্তিকর তথ্য’ সরিয়ে না নিলে দুই অনলাইন মাধ্যমের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে দেশটি। পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডন জানায়, ইন্টারনেট ব্রাউজারে ‘ইসলামের বর্তমান খলিফা’ লিখে সার্চ করলে 'মির্জা মাসরুর আহমদ'কে দেখাচ্ছে - এমন অভিযোগের ভিত্তিতে সার্চ ইঞ্জিন গুগলের সঙ্গে যোগাযোগ করে দেশটির নীতিনির্ধারকরা।

মূলত তথ্য সংরক্ষণ ও যাচাইয়ে উইকিপিডিয়ার কোন নির্দিষ্ট নীতিমালা না থাকায় এটিকে যে কেউ সংশোধন করতে পারেন। সম্প্রতি কেউ এতে ‘ইসলামের বর্তমান খলিফা’ বিষয়ক তথ্য যুক্ত করার পর গুগল সার্চের রেজাল্টও বদলে যায়। তাই শুক্রবার পাকিস্তানের নীতিনির্ধারক দল গুগল এবং উইকিপিডিয়ার বিরুদ্ধে ‘বিভ্রান্তিকর ধর্মবিশ্বাস’ ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ তোলে।

পাকিস্তানের ধর্মীয় সংগঠনগুলোর দাবি, গুগল প্লে স্টোরেও পবিত্র কুরআনের একটি ‘আলাদা সংস্করণ’ রয়েছে যেখানে দেশটির বিতর্কিত ধর্মীয় নেতা মির্জা মাসরুর আহমদকে ইসলামের বর্তমান খলিফা ঘোষণা করা হয়েছে। জার্মান সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলের খবরে বলা হয়, “কোরআনের বিকৃত সংস্করণ মুসলমানদের ধর্মীয় বিশ্বাসে আঘাত করেছে। তাই গুগলকে অবিলম্বে এসব তথ্য সরিয়ে ফেলার আহ্বান জানিয়েছে পাকিস্তান টেলিযোগযোগ কর্তৃপক্ষ, পিটিএ।”

পিটিএর টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এক বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, “গুগল নবী করিম (সা:) এর একটি ব্যাঙ্গাত্মক ছবি ছড়াচ্ছে এবং উইকিপিডিয়া মির্জা মাসরুর আহমদকে ‘মুসলমান’ হিসেবে উল্লেখ করছে। এসব তথ্য বিকৃত এবং প্রতারণামূলক। এ বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ না নিলে সাইবার অপরাধ আইন ‘ইলেকট্রনিক ক্রাইম অ্যাক্ট ২০১৬ ও ২০১০’ এর আওতায় গুগল ও উইকিপিডিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে পিটিএ।”

পাকিস্তানের সংখ্যালঘু আহমদিয়া সম্প্রদায়ের লোকেরা মির্জা মাসরুর আহমেদকে ‘খলিফা’ তথা মহানবীর প্রতিনিধি মনে করেন। তবে এ নিয়ে তাদের সঙ্গে মুসলিম সম্প্রদায়গুলোর মতভেদ রয়েছে।

আরও পড়ুন